মাঝিহীন নৌকা! মোহনবাগান কোচের পদ থেকে ইস্তফা সঞ্জয় সেনের

 মঙ্গলবার সাংবাদিক সম্মেলনে করে সঞ্জয় সেন সাফ জানালেন, "আমি ভেবে চিন্তেই করেই দায়িত্ব ছাড়লাম। দল না-পারলে কোচকে দায় নিতেই হয়। এটাই ছেড়ে দেওয়ার ভাল সময়। খেলোয়াড়দের ধন্যবাদ। দলের সমস্ত আধিকারিকদের ধন্যবাদ।" 

Updated By: Jan 2, 2018, 09:10 PM IST
মাঝিহীন নৌকা! মোহনবাগান কোচের পদ থেকে ইস্তফা সঞ্জয় সেনের
সুখের সে দিন। আই-লিগ জয়ের পর খেলোয়াড়দের মাঝে কোচ সঞ্জয় সেন।

ওয়েব ডেস্ক: ঘরের মাঠে হার। ব্যর্থতার দায় নিয়ে মোহনবাগানের কোচ পদ থেকে ইস্তফা দিলেন সঞ্জয় সেন। আর আইলিগ-জয়ী কোচের এই সিদ্ধান্তেই বাগানে শেষ হল সঞ্জয় জমানা। মঙ্গলবার সাংবাদিক সম্মেলনে করে সঞ্জয় সেন সাফ জানালেন, "আমি ভাবনা চিন্তা করেই দায়িত্ব ছাড়লাম। দল না-পারলে কোচকে দায় নিতেই হয়। এটাই ছেড়ে দেওয়ার ভাল সময়। খেলোয়াড়দের ধন্যবাদ। দলের সমস্ত আধিকারিকদের ধন্যবাদ।" আনুষ্ঠানিকভাবে পদত্যাগ করার কথা ঘোষণা করার সময়ই প্রত্যয়ী কোচ সঞ্জয় সেন বলেন, "দল এখনও চ্যাম্পিয়ন হতে পারে।" 

আরও পড়ুন- নতুন বছরের উপহার, বাবা হতে চলেছেন মিস্টার ডিপেন্ডেবল

টানা ৩৮ মাস পর আই-লিগের কোনও ম্যাচে ঘরের মাঠে হার হজম করতে হয়েছে মোহনবাগানকে। তার পরই সবুজ-মেরুন সমর্থকদের আক্রমণের মুখে পড়তে হয় ভারতসেরা এই কোচকে। ম্যাচ হেরে ড্রেসিং রুমে ফেরার সময় তাঁকে লক্ষ্য করে থুতুও ছোঁড়েন মোহনবাগান সমর্থকরা। এমনকী সাংবাদিক সম্মেলন চলাকালীন কোচ সঞ্জয় সেনকে লক্ষ্য করে ছোড়া হয় ইট। যদিও দর্শকদের এমন আচরণে একটুও আবেগতাড়িত হননি সঞ্জয়। তাঁকে ইট ছোড়ার প্রসঙ্গে তাঁর সাফ কথা, "এটা হয়। অমল দত্তকে সরে যেতে হয়েছে। বাবলু ভট্টাচার্যের (প্রাক্তন মোহনবাগান কোচ সুব্রত ভট্টাচার্য) সঙ্গেও এমন হয়েছে।" 

আরও পড়ুন- অ্যাসেজে মুখ পুড়ল অস্ট্রেলিয়ার

গত বছর সাহেব কোচ ট্রেভর জেমস মর্গ্যানকে নিয়েও এমন কুৎসিত ছবি দেখেছিল ময়দান। যে কোচকে একসময় মাথায় করে রেখেছিল লাল-হলুদ সমর্থক থেকে আধিকারিকরা, দলের ব্যর্থতায় তাঁকেই কার্যত 'ঝেঁটিয়ে বিদায়' করেছে ইস্টবেঙ্গল। সেই একই ছবি এবার বাগান তাবুতেও। যে কোচের হাত ধরে দল আই-লিগ খরা কাটিয়ে চ্যাম্পিয়ন হল, তাঁর গায়েই থুতু ছেটাল ক্লাব সমর্থকরা।  

আরও পড়ুন- অভব্যতার দায়ে বাংলাদেশ বোর্ডের কোপে সাব্বির! ৬ মাস নির্বাসিত, জরিমানা ২০ লাখ

উল্লেখ্য, সাম্প্রতিক সময়ে মোহনবাগানের কোচ পদে টানা সাড়ে তিন বছর কোচিং করানোর নজির রয়েছে সঞ্জয় সেনের। এর আগে কেউ দীর্ঘস্থায়ী হননি। আই-লিগে বাগানকে চ্যাম্পিয়ন করে সবুজ-মেরুন শিবিরে কোচেদের আসা যাওয়ার 'চ্যাপ্টার ক্লোস' করেছিলেন এই বাঙালি কোচ। তবে শেষটা একেবারেই মধুর হল না সঞ্জয় সেনের। তিন ম্যাচ ড্র। চেন্নাই এফসি-র কাছে ২-১ ব্যবধানে হার বাগানের। বছরের শুরুতেই এমন হার, আর এক ঝটকায় হিরো থেকে জিরো হয়ে যাওয়া মনে করিয়ে দিল ময়দানের অমোঘ বিধি।