''সেদিন যেন মেসির মা মারা গিয়েছিল...''

রাশিয়া বিশ্বকাপের পর অনির্দিষ্টকালের জন্য জাতীয় দল থেকে স্বেচ্ছা নির্বাসন নিয়েছেন মেসি।

Updated By: Sep 15, 2018, 01:46 PM IST
''সেদিন যেন মেসির মা মারা গিয়েছিল...''

নিজস্ব প্রতিনিধি : একটা ট্রফি জিতলেই যেন তাঁর কেরিয়ারের ষোলো কলা পূর্ণ। একটা ট্রফি। তাঁর জন্য লিওনেল মেসি নিজেও যেন প্রচণ্ডরকম মরিয়া। কিন্তু সেই বহুপ্রতিক্ষীত ট্রফি আর কিছুতেই ধরা দিচ্ছে না। তিনবার বড় আসরের ফাইনাল খেলে খালি হাতে ফিরতে হয়েছে আর্জেন্টাইন তারকাকে। ফলে হতাশা বেড়েছে পাল্লা দিয়ে। শত চেষ্টা করেও বিশ্বকাপ বা কোপা আমেরিকা, কোনওটাই না জেতায় মেসি যেন ভেঙে পড়েছেন।

আরও পড়ুন-   সাংবাদিককে নকল! রোনাল্ডো যেন দক্ষ কমেডিয়ান

রাশিয়া বিশ্বকাপের পর অনির্দিষ্টকালের জন্য জাতীয় দল থেকে স্বেচ্ছা নির্বাসন নিয়েছেন মেসি। কবে আবার জাতীয় দলের জার্সি গায়ে ফিরবেন কেউ জানেন না। আসলে রাশিয়া বিশ্বকাপ থেকে বিদায় যেন কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না মেসি। সেই ব্যর্থতার রেশ চলছে এখনও। রাশিয়া থেকে ফিরে আসার পরও মেসিকে ঘিরে রয়েছে হতাশা। সেই হতাশা কত বড় আকার নিয়েছিল তার আভাস দিলেন এলভিও পাওলোরসো। জেরার্দো মার্তিনো আর্জেন্টিনার কোচ থাকাকালীন তিনি ছিলেন ফিটনেস ট্রেনার। সেই পাওলোরসো জানালেন, ২০১৬ কোপা আমেরিকার ফাইনালে টাইব্রেকার মিস করার পর মেসির হতাশা কোন জায়গায় ছিল!

আরও পড়ুন-  মেক্সিকোর ক্লাব কর্তাদের কাছে প্রায় আকাশ চেয়ে নিলেন মারাদোনা

পাওলোরসো বলছিলেন, ''ফাইনালে হারের পর ড্রেসিংরুমে ঢোকা যাচ্ছিল না। সেখানে যেন কবরস্থানের মতো নিস্তব্ধবতা ছিল। মেসির অবস্থা ছিল আরও করুণ। রাত তখন সম্ভবত দুটো বাজে। একটা কিছু খুঁজতে গুদামঘরের দিকে গিয়েছিলাম। সেখানে গিয়ে প্রচণ্ড কান্নার শব্দ শুনলাম। এগিয়ে গিয়ে দেখলাম মেসি বাচ্চাদের মতো হাউহাউ করে কাঁদছে। যেন সেই রাতে ওর মা মারা গিয়েছিল। সম্পূর্ণ একা হয়ে দাঁড়িয়েছিল ও। তার পর আমি এগিয়ে গিয়ে ওকে স্বান্ত্বনা দেওয়ার চেষ্টা করলাম। ওর দিকে এক গ্লাস ওয়াইন এগিয়ে দিয়েছিলাম। ওকে এর আগে এতটা ভেঙে পড়তে কখনও দেখিনি। ওর রাতে মেসিকে দেখে আমারও কান্না পাচ্ছিল।''