করোনা প্রচার থেকে অনলাইন পড়াশোনার খোঁজখবর, ঢ্যাড়া পিটিয়ে গ্রাম ঘুরল তরুণের দল

 শুধু কি তাই? এছাড়াও যারা অনলাইনে পড়াশুনা করে তাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে এদিন জিজ্ঞেস করা হল ইন্টারনেটে অনলাইনে পড়া হয় কি না। দুঃস্থ পড়ুয়াদের করে দেওয়া হল মোবাইল রিচার্জ। 

Updated By: Aug 25, 2020, 01:14 PM IST
করোনা প্রচার থেকে অনলাইন পড়াশোনার খোঁজখবর, ঢ্যাড়া পিটিয়ে গ্রাম ঘুরল তরুণের দল

কমলাক্ষ ভট্টাচার্য: এতদিন চৈত্র সেলের প্রচার হোক বা পঞ্চায়েতের নতুন ঘোষণা—অটোরিক্সায় চোঙা বেঁধে দিব্যি চলত প্রচার। শহর হতে চলা সেই আধা গ্রামে এবার অন্য বার্তা প্রচারে বাজল ঢ্যাড়া। হাবরা ১নং ব্লকের কুমড়োকাশীপুরের পুকুর পাড় থেকে গঞ্জের বাজার, ঢ্যা ঢ্যা করে দাপিয়ে বেড়ালেন এলাকারই কিছু তরুণ তরুণী। 

উদ্দেশ্য, কোভিড মোকাবিলায় গ্রামবাসীদের সচেতনতার প্রসার সঙ্গে ডেঙ্গির প্রচার। টিনের বাক্স পেটাতে পেটাতে গ্রামজুড়ে চলল হ্যান্ডবিল বিলি। মানুষজন ডেকে ডেকে বোঝান হল ভয় নয়, সচেতনতাই হল করোনা বধের অস্ত্র। কুমড়োকাশীপুর গ্রামে সমাজকল্যানের উদ্দেশ্যে গত ১০ বছর ধরে জোট বেঁধে কাজ করছেন এলাকার ছেলেমেয়েরা। 

আরও পড়ুন: ৩ মাসের প্রসূতির পেটে লাথি, মাঝরাতে জানলা ভেঙে গৃহবধূকে খুনের চেষ্টা তৃণমূল নেতার!

এক টাকার পাঠশালায় দুঃস্থ শিশুদের পড়াশুনো চালানোর পাশাপাশি আমপানের ঝড়ে ভেঙে যাওয়া পাখির বাসার মেরামতি- সবেতেই উদ্যোমী এই তরুণ দল। শুধু কি তাই? এছাড়াও যারা অনলাইনে পড়াশুনা করে তাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে এদিন জিজ্ঞেস করা হল ইন্টারনেটে অনলাইনে পড়া হয় কি না। দুঃস্থ পড়ুয়াদের করে দেওয়া হল মোবাইল রিচার্জ। 

উদ্যোমী এই তরুণদের পক্ষে সঞ্জীব কাঞ্জিলাল জানান, “ গ্রামগঞ্জে বেশিরভাগ মানুষ এখনও মাস্ক পরতে চান না। তাই ঢ্যাড়া পিটিয়ে মাস্ক বিতরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ২২ জনের একটি দল বানিয়ে রুদ্রপুর,টুনিঘাটা,কাশিপুর দক্ষিন পাড়া, কাশিপুর উত্তরপাড়ায় সচেতনতা ও শিক্ষা সামগ্রী বিতরন করা চলছে।”