এই তিনটে জিনিস জানলে আপনার চিনাদের সম্পর্কে ঘেন্না লাগবে

চিন সম্পর্কে আমাদের জানা খুব বেশি নেই। চিনের প্রাচীর আর প্রচুর জনসংখ্যা আর অবশ্য দূষণ। চিন মানেই যেন আমাদের কাছে এগুলোই। কিন্তু চিনে যাঁরা ঘুরতে যান অথবা কোনও কাজেই যাওয়ার অভিজ্ঞতা রয়েছে, তাঁরা কিন্তু চিনকে খুব একটা দরাজ সার্টিফিকেট মোটেই দেন না। বরং, চিন সম্পর্কে যে কথাগুলো বলেন, তাতে চিন সম্পর্কে আপনার ভালো লাগা কম বরং, খানিকটা ঘেন্নাই লাগবে। বিভিন্ন মানুষের কথার উপর ভিত্তি করে চিনের যে তিনটে জিনিস সম্পর্কে জানলে আপনার গা ঘিনঘিন করে উঠবে, তেমন তিনটে জিনিসের কথাই উল্লেখ করা হল।

Updated By: Jul 23, 2016, 04:08 PM IST
এই তিনটে জিনিস জানলে আপনার চিনাদের সম্পর্কে ঘেন্না লাগবে

ওয়েব ডেস্ক: চিন সম্পর্কে আমাদের জানা খুব বেশি নেই। চিনের প্রাচীর আর প্রচুর জনসংখ্যা আর অবশ্য দূষণ। চিন মানেই যেন আমাদের কাছে এগুলোই। কিন্তু চিনে যাঁরা ঘুরতে যান অথবা কোনও কাজেই যাওয়ার অভিজ্ঞতা রয়েছে, তাঁরা কিন্তু চিনকে খুব একটা দরাজ সার্টিফিকেট মোটেই দেন না। বরং, চিন সম্পর্কে যে কথাগুলো বলেন, তাতে চিন সম্পর্কে আপনার ভালো লাগা কম বরং, খানিকটা ঘেন্নাই লাগবে। বিভিন্ন মানুষের কথার উপর ভিত্তি করে চিনের যে তিনটে জিনিস সম্পর্কে জানলে আপনার গা ঘিনঘিন করে উঠবে, তেমন তিনটে জিনিসের কথাই উল্লেখ করা হল।

১) জানেন চিনারা দাঁত মাজে না! হ্যাঁ, ঠিকই। চিনারা মাউথ ফ্রেশনার ব্যবহার করেন। তাই তাঁরা দাঁত মাজেন না। এতে তাঁদের মুখ হয়তো ভালই থাকে। কিন্তু ভাবুন তো, যে দাঁত মাজে না, তাঁর সামনে যাওয়া যায়?

২) চিনাদের সেলুনে গিয়ে চুল কাটা! সে এক বিচ্ছিরি জিনিস। আপনি তো আর জন্মগতভাবে চিনা নন। তাই আপনার চুল, চিনাদের মতো না হওয়াটাই স্বাভাবিক। কিন্তু চিনের সেলুনের নাপিত আপনার এই আবেগ বুঝলে তো! সে আপনি যাই বলুন না কেন, সেলুন থেকে বেরিয়ে বুঝবেন, আপনার চুল কদম ছাঁট করে দেওয়া হয়েছে। তা বলে নিজেকে মোটেই জ্যাকি চ্যানের মতো দেখাবে না।

৩) চিনের পাবলিক টয়লেট! আসলে চিনারা ফল খেতে খুব ভালোবাসে। আর তাঁদের খাওয়ার জন্য বাথরুমটাও অপরিষ্কার যায়গা নয়। কখনও কখনও তাঁরা বাথরুমেও ফল কিংবা বাইরের খাবার খান! হ্যাঁ, পাবলিক টয়লেটের ভিতরেই। আর সেই খোসা এবং না খাওয়া জিনিস তাঁরা দিব্যি ফেলে দেন বেসিনে। এতে বাথরুম হয়ে যায় একেবারে অপরিষ্কার।

হ্যাঁ, যে সমস্ত বিদেশিরা চিনে গিয়েছেন, তাঁরা সবথেকে বেশি বিরক্ত হয়েছেন চিনাদের এই তিনটে জিনিসেই। ও হ্যাঁ, তাঁদের খাদ্যাভ্যাসের কথা না বলাই ভালো।

আরও পড়ুন মিউনিখে আত্মঘাতী বন্দুকবাজ; হামলার কারণ অস্পষ্ট