গ্রেফতার ঋতব্রত, অধরা প্রেসিডেন্সি কাণ্ডে অভিযুক্ত তৃণমূলের নেতারা

দিল্লি কাণ্ডে গ্রেফতার হলেন এসএফআইয়ের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু প্রেসিডেন্সি কাণ্ডে এখনও মূল অভিযুক্ত তৃণমূল নেতাদের নিয়ে নীরব দর্শক কলকাতা পুলিস। স্বভাবতই প্রশ্ন উঠছে, তবে কি এ রাজ্য নিরপেক্ষতা এখন শুধু মুখের কথা? ৯ এপ্রিল, দিল্লিতে আমিত মিত্রকে হেনস্থার ঘটনায় নিন্দায় সরব হয়েছিলেন সকল অংশের মানুষ। অনেকেই প্রশ্ন তুলেছিলেন ঘটনার সময় যাদের ছবি দেখা গিয়েছিল, তাঁদের সকলের বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না? ছবিতে দেখতে পাওয়া এসএফআইয়ের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদককে সোমবার গ্রেফতার করল দিল্লি পুলিস।

প্রেসিডেন্সি হামলা: জামিন পেলেন পার্থ, তমোঘ্ন

এপ্রিল ১০-এ তৃণমূল ছাত্র পরিষদের ঝান্ডা হাতে শতাব্দী প্রাচীন প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলা চালায় একদল দুষ্কৃতী। রাজ্য তৃণমুল নেতৃত্ব দলীয় উপস্থিতি অস্বিকার করলেও ২৪ ঘণ্টার হাতে আসা এক্সক্লুসিভ ছবিতে একাধিক তৃণমূল ও টিএমসিপি নেতাকে দেখা গিয়েছে। তাঁদের মধ্যে ছিলেন পার্থ বসু। কলকাতা পুরসভার ৪০ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর। বিধানসভার ডেপুটি স্পিকার সোনালি গুহর স্বামী। তমোঘ্ন ঘোষও ওই দলের পুরভাগেই ছিলেন।

শিল্পমন্ত্রীর অভিযোগের জেরে নিরাপত্তারক্ষীকে তিনঘণ্টা জেরা

প্রেসিডেন্সিতে হামলার ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তারক্ষী সন্তোষ সিং ওরফে পাপ্পুকে জেরা করল পুলিস। জোড়াসাঁকো থানায় তিন ঘণ্টার বেশি সময় ধরে তাঁকে জেরা করা হয়। তবে পাপ্পুর বিরুদ্ধে সেই অভিযোগকে কার্যত উড়িয়ে দিলেন বিভাগীয় প্রধান সৌমক রায়চৌধুরী। আজ জোড়াসাঁকো থানায় যান প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রবীর দাশগুপ্ত ও বিভাগীয় প্রধান সৌমক রায়চৌধুরী। মূলত পাপ্পু সিংকে গ্রেফতার করা হতে পারে কিনা তারই সত্যতা জানতে থানায় গিয়েছিলেন তাঁরা।

প্রেসিডেন্সির ঘটনা সাজানো: পার্থ চট্টোপাধ্যায়

গতকালই প্রেসিডেন্সি কলেজে গিয়ে ছাত্রছাত্রীদের রাজ্যপাল আশ্বাস দিয়েছিলেন, পুরো ঘটনার পুলিসি তদন্তে কি উঠে আসে সেই পর্যন্ত অপেক্ষা করবেন তিনি। কিন্তু আশ্বাসের পর ২৪ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই ফের প্রেসিডেন্সি নিয়ে সাজানো ঘটনার তত্ত্ব হাজির করা হল শাসকদলের পক্ষে। এদিন পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, পুরো ঘটনাটা সাজানো কিনা তা খতিয়ে দেখা দরকার। তাঁর বক্তব্য বুধবার প্রেসিডেন্সিতে হামলার ঘটনার পিছনে বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরেও কোনও `চক্রান্ত` আছে কিনা সে বিষয় তদন্ত করা দরকার। হামলার সময় যে বর্শা ব্যবহার করা হয়েছিল, তা প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রীড়া বিভাগ থেকে এনে ক্যাম্পাসে মজুত করা হয়েছিল কিনা, সেই প্রশ্নও তুলেছেন শিল্পমন্ত্রী। দিল্লির ঘটনা থেকে চোখ ঘুরিয়ে দেওয়ার জন্যই সিপিআইএম এই সব চক্রান্ত করছে বলে জানান তিনি।

প্রেসিডেন্সি হামলা: পাল্টা অভিযোগ আক্রান্ত দেবর্ষির বিরুদ্ধে

প্রেসিডেন্সি হামলায় নতুন কৌশল নিল শাসক দলের ছাত্র সংগঠন। আক্রান্তদের বিরুদ্ধেই থানায় অভিযোগ জানান হল। সেই দিনের হামলায় ঘটনায় মারা হয় প্রেসিডেন্সির ইতিহাস বিভাগের ছাত্র দেবর্ষি চক্রবর্তী এবং ছন্দক চ্যাটার্জির বিরুদ্ধে জোড়াসাঁকো থানায় মামলা রুজু করা হল। অভিযোগ দায়ের করেন হামলার পুরভাগে থাকা তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতা তথাগত সাহা এবং স্থানীয় তৃণমূল নেতা চিনু হাজরা।

প্রেসিডেন্সি তাণ্ডবে তৃণমূলই, শিল্পমন্ত্রীর দাবি উড়িয়ে বলছে ছবি

বুধবার তাণ্ডব চলে প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে। তৃণমূল কংগ্রেসের দাবি, দুষ্কৃতিরা তাঁদের দলের কেউ নয়। তবে ছবি বলছে অন্য কথা। গেটের ওপর চড়ে রীতিমতো যুদ্ধংদেহি মূর্তিতে দেখা যাচ্ছে তৃণমূল নেতা পার্থ বসুকে। কে এই পার্থ বসু? পার্থ বসু হলেন কলকাতার চল্লিশ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কংগ্রেসের কাউন্সিলর। শুধু তাই নয়। তাঁর আরও একটি পরিচয় আছে। তিনি আবার রাজ্যের ডেপুটি স্পিকার সৌনালি গুহর স্বামী। এই পরিচয় জানার পর, কী বলবেন শিল্পমন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়? কী বলবেন তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব?