করোনাভাইরাস আগেভাগেই শনাক্ত করতে বিশেষ কিট আবিষ্কার করলেন ভারতীয় গবেষকরা

গবেষকরা জানান, সাধারণ মানুষের কথা মাথায় রেখে এই কিট এমন ভাবেই তৈরি করা হয়েছে যা বাজার থেকে অনেক সস্তায় কেনা যাবে

Edited By: সুদীপ দে | Updated By: Mar 24, 2020, 03:03 PM IST
করোনাভাইরাস আগেভাগেই শনাক্ত করতে বিশেষ কিট আবিষ্কার করলেন ভারতীয় গবেষকরা

নিজস্ব প্রতিবেদন: করোনা আতঙ্কের আবহে দেশকে কিছুটা স্বস্তির খবর শোনালেন আইআইটি দিল্লির গবেষকরা। তাঁরা এমন একটি কিট তৈরি করেছেন যা COVID-19 ভাইরাস শনাক্ত করতে সক্ষম। আইআইটি দিল্লির পাশাপাশি পুনের জাতীয় জীববিজ্ঞান ইনস্টিটিউট এই কিটটির পরীক্ষা করছে। গবেষকরা জানান, সাধারণ মানুষের কথা মাথায় রেখে এই কিট এমন ভাবেই তৈরি করা হয়েছে যা বাজার থেকে অনেক সস্তায় কেনা যাবে।

এই কিট প্রসঙ্গে গবেষক দলের প্রধান অধ্যাপক বিবেকান্দ পেরুমল জানান, করোনাভাইরাসের আলাদা আলাদা নমুনা সংগ্রহ করে তা নিখুঁত ভাবে পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে। এর পর এই মারণ ভাইরাসের বিষয়ে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সামনে এসেছে।

অধ্যাপক পেরুমল জানান, বার বার নিজেকে বদলে ক্রমশ গোটা বিশ্ব গ্রাস করতে চলেছে এই নতুন ভাইরাসের। COVID-19-এর এমন কয়েকটি স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট এই গবেষণায় সামনে এসেছে যা অন্য করোনভাইরাসগুলিতে পাওয়া যায় না। এই কিট-টি দিয়ে পরীক্ষার সময় এটি করোনভাইরাস শনাক্ত করতে সহায়তা করবে।

এই কিটটি তৈরি করেছে দিল্লি আইআইটির ‘কুসুম স্কুল অব বায়োলজিকাল সায়েন্স’। অধ্যাপক পেরুমালের দাবি, এই নতুন কিটটি করোনা সম্বন্ধে সঠিক তথ্য দেবে। এই কিটটি পুনের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ভাইরোলজি থেকে অনুমোদন পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই দেশের জন্য সহায়ক হিসাবে প্রমাণিত হবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

গবেষক দলের আর এক সদস্য অধ্যাপক মনোজ মেনন এই বিষয়ে জানান, কোনও আক্রান্তের শরীরে করোনাভাইরাস আছে কিনা এই নতুন কিট-টি তার সঠিক তথ্য জানিয়ে দেবে।

আরও পড়ুন: সংবাদপত্রের মাধ্যমেও কি ছড়িয়ে পড়তে পারে করোনাভাইরাস?

আইআইটি দিল্লি ছাড়াও পুনের আরও একটি ডায়গোননেস্টিক সংস্থা ‘মাই ল্যাব ডিসকভারি সোনিউশ্যান প্রাইভেট লিমিটেট’ COVID-19 শনাক্ত করার কিট আবিষ্কার করেছে। ওই ল্যাবের ম্যানেজিং ডিরেক্টর মণোজ হাসমুখ জানান, আমাদের গবেষকদের তৈরি কিট ভারত সরকারের এফডিএ / সিডিএসসিও কর্তৃক অনুমোদিত। সব মিলিয়ে করোনা আতঙ্কের আবহে দেশের মানুষ কিছুটা স্বস্তি পেলেন। গবেষকদের আশা, খুব শীঘ্রই গুজব, আতঙ্ক কাটিয়ে এই কিটের মাধ্যমে করোনা-সংক্রমণ সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারবেন সাধারণ মানুষ। সতর্ক বা সচেতন হতে পারবেন আগেভাগেই।