মদ্যপায়ীদের মধ্যে স্নায়ুরোগের ঝুঁকি অন্যান্যদের তুলনায় অনেকটাই কম! দাবি সমীক্ষায়

সঠিক মাত্রায় অ্যালকোহল সেবন শুধু ডিমেনশিয়া বা অ্যালঝাইমার্সের মতো স্নায়ুরোগ নয়, ডায়াবেটিস বা হৃদরোগের ঝুঁকিও কমাতে সাহায্য করে।

Updated By: Nov 12, 2019, 03:59 PM IST
মদ্যপায়ীদের মধ্যে স্নায়ুরোগের ঝুঁকি অন্যান্যদের তুলনায় অনেকটাই কম! দাবি সমীক্ষায়
—প্রতীকী ছবি।

নিজস্ব প্রতিবেদন: শরীর স্বাস্থের ক্ষেত্রে মদ্যপানের অভ্যাস অত্যন্ত ক্ষতিকর। এর ক্ষতিকারক দিকগুলির কথা কম-বেশি আমরা প্রায় সকলেই জানি। যেমন, নিয়মিত মদ্যপানের ফলে ওজন বৃদ্ধি, কোলোনিক ফ্যাট, লিভারের নানা সমস্যা হতে পারে। তবে মদ খাওয়ার বেশ কিছু উপকারিতাও রয়েছে। অন্তত এমনটাই দাবি করা হয়েছে বিভিন্ন গবেষণার রিপোর্টে।

সম্প্রতি ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক দাবি করেছেন, নির্দিষ্ট মাত্রায় মদ্যপান করলে শরীর থাকবে চনমনে, স্মৃতিশক্তিও থাকবে অটুট! শুধু তাই নয়, বয়স বাড়লেও অ্যালঝাইমার্স বা ডিমেনশিয়ার মতো স্নায়ুরোগও ধারে কাছে ঘেঁষবে না!

মার্কিন গবেষকরা জানিয়েছেন, যাঁরা একেবারেই মদ্যপান করেন না বা মদ খাওয়া দীর্ঘদিন হল ছেড়ে দিয়েছেন, তাঁদের মধ্যে অ্যালঝাইমার্স বা ডিমেনশিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা প্রায় ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বেড়ে যেতে পারে। তুলনায় যাঁরা প্রতি সপ্তাহে বা নিয়মিত মেপে মেপে মদ্যপান করেন, তাঁদের মধ্যে এই সব রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি অনেকটাই কম। কিন্তু তার জন্য গবেষকেরা মদ্যপানের ক্ষেত্রে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ বেঁধে দিয়েছেন। তার চেয়ে বেশি পরিমাণ মদ্যপান করলেই ফল হবে উল্টো, ক্ষতিগ্রস্থ হবে লিভার। গবেষকদের মতে, দিনে সর্বোচ্চ ১৭০ মিলিলিটার থেকে ১৭৫ মিলিলিটার মদ্যপান করা যেতে পারে। এর বেশি মদ্যপানের অভ্যাস ঝুঁকির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে বলে মত মার্কিন গবেষক ডঃ লিন্ডা ম্যাকিভয়ের।

মার্কিন গবেষকদের সঙ্গে একমত ‘ফ্রেঞ্চ ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ অ্যান্ড মেডিক্যাল রিসার্চ’-এর গবেষক সেভারিন সাবিয়া। সাবিয়ার জানান, সাধারণত বয়স ষাট-বাষট্টি পেরোলেই ডিমেনশিয়ার প্রভাব দেখা দিতে শুরু করে। ৮৫ বছর বা তার বেশি বয়সের মানুষের ক্ষেত্রে সেই ঝুঁকি প্রায় ৪০ শতাংশ বেড়ে যায়। আমেরিকার বাল্টিমোরের ‘দ্য জন হপকিন্স স্কুল অব মেডিসিন’-এর অধ্যাপক সেভিল ইয়াসার জানান, এই সমীক্ষায় যে অদ্ভুত তথ্যটি সামনে এসেছে তা হল, যাঁরা একেবারেই মদ্যপান করেন না বা দীর্ঘদিন মদ খাওয়া ছেড়ে দিয়েছেন, তাঁদের মধ্যে ডিমেনশিয়া বা অ্যালঝাইমার্সে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা অনেক বেশি। বরং যাঁরা নির্দিষ্ট মাত্রায় মদ্যপান করেন, তাঁদের ঝুঁকি এ ক্ষেত্রে অনেক কম।

আরও পড়ুন: জ্বর হয়েছে? ডেঙ্গি কিনা বুঝবেন কী করে, জেনে নিন

১৯৮৪ সাল থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত প্রায় ৯,০৮৭ জনের মধ্যে পরীক্ষা চালিয়ে দেখা গিয়েছে, যাঁরা কখনওই মদ্যপান করেননি তেমন ৩৯৭ জন ডিমেশিয়ায় আক্রান্ত। আর ডিমেশিয়ায় আক্রান্তদের বয়স ২৩ থেকে ২৫ বছরের মধ্যে। ইয়াসারের মতে, অন্যান্য অ্যালকোহলের মধ্যে ওয়াইন সবচেয়ে সুরক্ষিত। কারণ, ওয়াইনের মধ্যে থাকা পলিফেনলিক উপাদান স্নায়ুতন্ত্রের সুস্থতার জন্য অত্যন্ত কার্যকরী। এই উপাদান হার্টের স্বাস্থ্য ভাল রাখতেও সাহায্য করে।

সুতরাং, সঠিক মাত্রায় অ্যালকোহল সেবন শুধু ডিমেনশিয়া বা অ্যালঝাইমার্সের মতো স্নায়ুরোগ নয়, ডায়াবেটিস বা হৃদরোগের ঝুঁকিও কমাতে সাহায্য করে।