সরকারের প্রতি অনাস্থায় ইস্তফা দিয়েছেন লক্ষ্মীরতন শুক্লা: Mukul

'অনেকদিন ধরে চিনি। ওঁর প্রতি পূর্ণ আর্শীবাদ রইল'। 

Updated By: Jan 5, 2021, 05:55 PM IST
সরকারের প্রতি অনাস্থায় ইস্তফা দিয়েছেন লক্ষ্মীরতন শুক্লা: Mukul

নিজস্ব প্রতিবেদন: 'সরকারের প্রতি অনাস্থায় পদত্যাগ করেছে। অনেকদিন ধরে চিনি। ওঁর প্রতি পূর্ণ আর্শীবাদ রইল'। লক্ষ্মীরতন শুক্লার (Laxmi Rata Shukla) মন্ত্রিত্ব ছাড়া নিয়ে প্রতিক্রিয়া মুকুল রায়ের (Mukul Roy)। উল্লেখ্য, মঙ্গলবার ফের ক্যাবিনেট বৈঠকে গরহাজির থাকলেন মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় (Rajib Banerjee)। এ বিষয়ে অবশ্য মুখ খুলতে চাননি মুকুল। শুধু বলেন, 'রাজীবকে ভালো মন্ত্রী হিসেবে চিনি, ভালো সংগঠক হিসেবে চিনি'।

আরও পড়ুন: নতুন বছরের শুরুতেই নন্দীগ্রামে Mamata, জানুয়ারিতে সভা করার সম্ভাবনা

স্রেফ খেলায় মন দিতে চান নাকি নেপথ্যে রাজনৈতিক সমীকরণ? অনেকটা 'বিনা মেঘে বজ্রপাত'-র মতো এদিন মন্ত্রিত্ব থেকে ইস্তফা দিলেন লক্ষ্মীরতন শুক্লা (Laxmi Ratan Shukla)।  রাজ্যের ক্রীড়া ও যুবকল্যাণ দফতরের প্রতিমন্ত্রী ছিলেন তিনি। তৃণমূলের (TMC) হাওড়া জেলা সভাপতির দায়িত্ব থেকেও তিনি অব্যাহতি চেয়েছেন বলে খবর। মন্ত্রিত্ব থেকে বাংলার প্রাক্তন রঞ্জি অধিনায়কের ইস্তফাপত্র ইতিমধ্যেই গ্রহণ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। তাঁর জায়গায় ক্রীড়া ও যুবকল্যাণ দফতরের স্বাধীন দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসকে (Arup Biswas)। কিন্তু হঠাৎ করে কেন মন্ত্রিত্ব ছাড়লেন লক্ষ্মীরতন শুক্লা (Laxmi Ratan Shukla)? মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, 'লক্ষ্মী ভালো ছেলে। কেউ পদত্যাগ করতেই পারে, কী যায় আসে। লক্ষ্মী যে চিঠি লিখেছে, তাতে লেখেনি যে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করছে। লিখেছে যে রাজনীতি থেকে সরে যেতে চায়। ও খেলায় আরও সময় দিতে চায়। তাই মন্ত্রিত্ব থেকে সরতে চায়। তবে এই টার্মের শেষ পর্যন্ত ও বিধায়ক থাকবে। ঠিক আছে। ও ভালো করে খেলাধুলো করুক।'  উল্লেখ্য, মুখ্যমন্ত্রীর সুপারিশ মেনে লক্ষ্মীর ইস্তফাপত্র গ্রহণ করেছেন রাজ্যপালও।

আরও পড়ুন: ক্যাবিনেট বৈঠকে আজ ফের অনুপস্থিত Rajib, এলেন না আরও ৪ মন্ত্রী

তবে মুখ্যমন্ত্রী যাই বলুন না কেন, ভোটের মুখে লক্ষ্মীর মন্ত্রিত্ব ছাড়া নিয়ে সরগরম রাজ্য রাজনীতি। তৃণমূলের (TMC) মুখপাত্র কুণাল ঘোষের (Kunal Ghosh) কটাক্ষ, 'যত তাড়াতাড়ি মুখোশ খোলে ততই ভাল'।  আর হাওড়া জেলার বিধায়ক তথা সমবায়মন্ত্রী অরূপ রায়ের (Arup Roy) প্রতিক্রিয়া, 'ভোটের আগে দলের সেনাপতির দায়িত্বে থাকা কেউ যদি চলে যায়, তাহলে সেটা যুদ্ধক্ষেত্র থেকে সরে যাওয়ার মতই ঘটনা'। তিনি আরও বলেন, 'নির্বাচনের আগে একাজটা ঠিক হয়নি। তবে কেউ চলে গেলেও কিছু যায় আসে না'।  সূত্রের খবর, যেভাবে কাজ করতে চেয়েছিলেন, সেভাবে কাজ করতে পারেননি লক্ষ্মীরতন শুক্লা। এই নিয়ে ঘনিষ্ঠমহলে ক্ষোভও উগরে দিয়েছেন তিনি।

এদিকে আবার মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে (Rajib Banerjee) নিয়ে জল্পনা বাড়ছে রাজনৈতিক মহলে। মঙ্গলবার সকালে তৃণমূল (TMC) মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের (Partha Chatterjee) সঙ্গে বৈঠক ছিল তাঁর। কিন্তু সেই বৈঠক এড়িয়ে যান রাজীব (Rajib Banerjee)। বিকেল গরহাজির থাকেন ক্যাবিনেট বৈঠকেও। উল্লেখ্য, এই নিয়ে ক্য়াবিনেটের ৪ বৈঠকে যোগ দিলেন না তিনি। এর আগেও মন্ত্রিসভার বৈঠকে যোগ দেননি তিনি। চলতি মাসের আবার রাজ্যে আসার কথা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের (Amit Shah)।