প্রধানমন্ত্রীর কলকাতা সফরে বিক্ষোভ আটকানোই চ্যালেঞ্জ কলকাতা পুলিসের

প্রধানমন্ত্রীর দু’দিনের সফরে নিরাপত্তার জন্য ২০ জন ডিসি, ৩২ জন এসি এবং ৩০০০ ফোর্স মোতায়েন থাকছে।

Reported By: অর্ণবাংশু নিয়োগী | Edited By: সুদেষ্ণা পাল | Updated By: Jan 10, 2020, 08:21 PM IST
প্রধানমন্ত্রীর কলকাতা সফরে বিক্ষোভ আটকানোই চ্যালেঞ্জ কলকাতা পুলিসের

নিজস্ব প্রতিবেদন : প্রধানমন্ত্রীর কলকাতা সফর ঘিরে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে একাধিক বিরোধী দল থেকে সংগঠন। মোদীর সফর ঘিরে কলকাতা পুলিসের সামনে তাই বড় চ্যালেঞ্জ। এয়ারপোর্ট থেকে ওল্ড কারেন্সি বিল্ডিং পর্যন্ত আসার ক্ষেত্রে সাধারণভাবে সড়কপথকে প্রথম গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। সেক্ষেত্রে নিউটাউন হয়ে মা উড়ালপুল ধরার সম্ভাবনা।

জানা যাচ্ছে, বিধানননগর পুলিসের সঙ্গে হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করবে কলকাতা পুলিস। হাডকো ক্রসিং থেকে নারকেলডাঙা হয়ে চিংড়িঘাটা ক্রসিং পর্যন্ত নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবেন একজন ডিসি। তাঁকে সহযোগিতা করবেন দু’জন এসি। তাঁদের সঙ্গে থাকবেন ৪ জন ইন্সপেক্টর পদমর্যাদার অফিসার, ১৬ জন সার্জেন্ট, ১৬ জন এএসআই এবং ৮০ জন সশ্রস্ত্র পুলিস। একইসঙ্গে রাস্তায় থাকবেন ৪০ জন লাঠিধারী হোমগার্ড। যারা সাধারণ মানুষকে নিয়ন্ত্রণ করবে। এখন নারকেলডাঙা মেন রোড থেকে মা উড়ালপুল পর্যন্ত রাস্তাটিকে ভাগ করা হয়েছে আরও ৮টি সেক্টরে।

মা উড়ালপুলে দায়িত্বে থাকবেন দু’জন ডিসি। সঙ্গে ৮ জন ইন্সপেক্টর পদমর্যাদার অফিসার ও ১১৮ জন সশস্ত্র পুলিসকর্মী মা উড়ালপুলে নজরদারি চালাবেন। মা উড়ালপুল থেকে ওল্ড কারেন্সি বিল্ডিং পর্যন্ত দায়িত্বে থাকা ডিসিকে সহযোগিতা করবেন ৩ জন এসি। তাঁর সঙ্গে থাকবেন ৬ জন ইন্সপেক্টর পদমর্যাদার অফিসার ও ১৩০ জন সশস্ত্র পুলিসকর্মী। মা উড়ালপুলের আশপাশের ছাদ থেকে বিশেষভারে নজরদারি চালানো হবে। নজরদারি চালাবে বায়নোকুলারধারী পুলিসকর্মীরা। একইসঙ্গে থাকবেন সয়ংক্রিয় রাইফেলধারী পুলিসকর্মীরা।

পুরো যাত্রা পথে প্রতিটি সেক্টরে ২টি করে মোটরসাইকেল পেট্রোল, ২টি করে পিসিআর ভ্যান থাকবে। যে কোনও জরুরি অবস্থায় যোগাযোগের জন্য কাজ করবে ভ্যানগুলি। প্রধানমন্ত্রীর জন্য আরসিটিসি হেলিপ্যাড থেকেও ওল্ড কারেন্সি বিল্ডিং পর্যন্ত নজরদারি চালানো হবে। সড়কপথ ছাড়াও এয়ারপোর্ট থেকে রেসকোর্স পর্যন্ত আসার জন্য তৈরি রাখা হচ্ছে হেলিকপ্টারও। এর জন্য একজন অতিরিক্ত ডিসিকে রাখা হচ্ছে। এরপর ওল্ড কারেন্সি বিল্ডিং থেকে মিলিনিয়াম পার্ক পর্যন্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থায় থাকবেন ২ জন ডিসি, ৪ জন এসি।

মিলিনিয়াম পার্কের ফেয়ারলি প্লেসের জেটি ঘাট থেকে জলপথে বেলুড়মঠ যেতে পারেন প্রধান মন্ত্রী। সেইজন্য জলপথে থাকছে বিশেষ ব্যবস্থা। প্রতিটি ঘাটে ও জেটিতে থাকবে সশস্ত্র পুলিসি প্রহরা। পুরো পথের দায়িত্বে থাকবেন ২ জন এসি। একইসঙ্গে রিভার ট্রাফিক পুলিসের ইন্সপেক্টর পদমর্যাদা অফিসার থাকবেন বিশেষ বোটে। যিনি প্রধানমন্ত্রীকে এসকর্ট করে নিয়ে যাবেন। এই বোটে থাকবেন বিশেষভাবে প্রশিক্ষিত ২ জন ডিএমজি অফিসারও। এছাড়া ডিএমজির একটি বোটও থাকবে জলপথের কনভয়ে। বেলুড়মঠ থেকে রাজভবনে ফেরার পথেও থাকবে বিশেষ ব্যবস্থা। তার নেতৃত্বে থাকবেন একজন ডিসি।

১২ জানুয়ারি রবিবার রাজভবন থেকে নেতাজি ইন্ডোরে যাওয়ার কথা প্রধানমন্ত্রীর। সেখানে কলকাতা পোর্ট ট্রাস্টের ১৫০ তম বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন মোদী। এখন রবিবার এনআরসি ইস্যুতে কয়েকটি সংগঠন রাজভবন ঘেরাও কর্মসূচির ডাক দিয়েছে। তাই রাজভবন ঘিরে থাকছে বিশেষ নিরাপত্তা বলয়। রবিবার রাজভবন থেকে ইন্ডোরে যাওয়ার পথে কালো পতাকা নিয়ে বিক্ষোভ দেখানো হতে পারে প্রধানমন্ত্রীকে। সেইজন্য আকাশবাণী থেকে ইন্ডোর পর্যন্ত পথ পুলিসে পুলিসে ছয়লাপ থাকবে। এই পুরো পথের দায়িত্বে থাকবেন যুগ্ম কমিশনার অপরাধ।

আরও পড়ুন, শনিবার রাতে রাজভবনে মোদীর সঙ্গে রুদ্ধদ্বার বৈঠক মমতার, তুঙ্গে জল্পনা

প্রধানমন্ত্রী পুরো সফরে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরোধিতায় বিক্ষোভকারীদের ঠেকানো বড় চ্যালেঞ্জ কলকাতা পুলিসের। সেজন্য অতিরিক্ত ফোর্সও মোতায়েন রাখা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর দু’দিনের সফরে নিরাপত্তার জন্য ২০ জন ডিসি, ৩২ জন এসি এবং ৩০০০ ফোর্স মোতায়েন থাকছে।