TET Qualifiers Agitation: হাইকোর্টের ধমকে কড়া পুলিস, উঠল অবস্থান! বদলাল কৌশলও...

চাকরির দাবিতে সল্টলেক করুণময়ীতে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের অফিসের সামনে অনশনে টেট উত্তীর্ণরা। যাঁরা অনশন করছেন, তাঁরা সকলেই ২০১৪ সালে প্রাথমিকে টেট পাস করেছেন। 

Updated By: Oct 20, 2022, 10:35 PM IST
 TET Qualifiers Agitation: হাইকোর্টের ধমকে কড়া পুলিস, উঠল অবস্থান! বদলাল কৌশলও...

অর্ণবাংশু নিয়োগী ও রণয় তিওয়ারি: হাইকোর্টের নির্দেশে করুণাময়ীতে পর্ষদের অফিসে সামনে ১৪৪ ধারা জারি করেছে পুলিস। আদালতের রায়ের কপি হাতে পাওয়ার পর রণকৌশল বদলে ফেলেন আন্দোলনকারীরা। আগের জায়গা থেকে খানিকটা পিছিয়ে গেলেন তাঁরা। সবাই একসঙ্গে নয়, চারজনের দল তৈরি করে বসে রয়েছেন আলাদাভাবে। সিঙ্গল বেঞ্চের রায়কে চ্যালেঞ্জ ডিভিশন বেঞ্চের দ্বারস্থ হতে চলেছেন টেট উত্তীর্ণরা।

আর কতদিন অপেক্ষা করতে হবে? ধৈর্য্যের বাঁধ ভেঙেছে টেট উত্তীর্ণদের। অবস্থান বিক্ষোভ নয়, চাকরির দাবিতে এবার সল্টলেক করুণময়ীতে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের অফিসের সামনে অনশনে বসেছেন তাঁরা। যাঁরা অনশন করছেন, তাঁরা সকলেই ২০১৪ সালে প্রাথমিকে টেট পাস করেছেন। নিয়োগ কবে? আজ, বৃহস্পতিবার টেট উত্তীর্ণদের অনশন চতুর্থ দিনে পড়ল।

অনড় প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদও। সাংবাদিক সম্মেলনে পর্ষদ সভাপতি গৌতম পাল জানিয়ে দিয়েছেন, '২০১৪ সালে টেট উত্তীর্ণদের দাবি আইনসম্মত নয়। অন্যায্য দাবি করছেন আন্দোলনকারী'। কেন? পর্ষদ সভাপতির দাবি, '২০১৬ সালের নীতি মেনেই নিয়োগ হবে। যাঁরা আন্দোলন করছেন, তাঁরা দু'বার ইন্টারভিউ দেওয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন। আইন ভেঙে নিয়োগ  সম্ভব নয়'। এমনকী, কর্মীদের নিরাপত্তার দাবিতে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয় পর্ষদ।

এদিন সেই মামলার শুনানি হল হাইকোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চে। শুনানিতে পর্ষদের আইনজীবী বলেন, 'প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের অফিস কার্যত বন্ধ। আমরা ঢুকতে-বেরোতে পারছি না। সামনে লাগাতার বিক্ষোভ চলছে। মাইকিং করেও আন্দোলনকারীদের সরানো যায়নি'। এরপর রাজ্য়ের তরফে আদালতকে জানানো হয়, 'এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। কিন্তু আন্দোলনকারী মানছে না। আমরা সবরকমভাবে প্রস্তুত। আদালত নির্দেশ দিক'।

আরও পড়ুন: কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন উপাচার্য আশিস কুমার চট্টোপাধ্য়ায়

কী নির্দেশ দিল হাইকোর্ট? অবকাশকালীন ডিভিশন বেঞ্চ জানিয়েছে, '১৪৪ ধারা নিশ্চিত করতে হবে। পর্যাপ্ত পুলিস মোতায়েন করতে হবে রাজ্যকে। কর্মীরা যাতে অফিসে ঢুকতে পারবেন, সে ব্যবস্থা করতে হবে'। বিচারপতির প্রশ্ন, 'পুলিস কি পাওয়ার লেস?' আপাতত ৪ নভেম্বর পর্যন্ত এই নির্দেশ কার্যকর থাকবে। তারপর মামলাটির শুনানি হবে হাইকোর্টের রেগুলার বেঞ্চে। পর্ষদের দ্রুত শুনানির আর্জি খারিজ করে দিয়েছে আদালত।

সন্ধ্যায় আন্দোলনকারীদের হাতে হাইকোর্টের নির্দেশের কপি তুলে দেয় পুলিস। এরপর চারজনের দল তৈরি করে অনশন চালিয়ে যাওয়ার নেন টেট উত্তীর্ণরা। শুধু তাই নয়, সিঙ্গল বেঞ্চের রায়কে চ্যালেঞ্জ করার জন্য ইতিমধ্যেই হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির সচিবালয়ে যোগাযোগ করেছেন তাঁরা। রাতেই আদালতে বসিয়ে ডিভিশন বেঞ্চে মামলা শুনানির আর্জিও জানানো হয়েছে। 

(Zee 24 Ghanta App দেশ, দুনিয়া, রাজ্য, কলকাতা, বিনোদন, খেলা, লাইফস্টাইল স্বাস্থ্য, প্রযুক্তির লেটেস্ট খবর পড়তে ডাউনলোড করুন Zee 24 Ghanta App)