close

News WrapGet Handpicked Stories from our editors directly to your mailbox

অনলাইনে ভোটার তালিকা সংশোধনের সময়সীমা বাড়াল নির্বাচন কমিশন

ভোটার তালিকায় নাম সংশোধন করা নিয়ে মানুষের দুশ্চিন্তার শেষ নেই। এর মধ্যে খানিকটা স্বস্তি দিল নির্বাচন কমিশনের ঘোষণা। ভোটার তালিকা সংশোধনের সময়সীমা ৩৩ দিন বাড়িয়ে দিল কমিশন। অর্থাত্ ১৬ অক্টোবরের পরিবর্তে নির্বাচন কমিশনের ইলেকটর্স ভেরিফিকেশন প্রোগ্রাম বা ইভিপি চলবে ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত।

Updated: Oct 14, 2019, 12:56 PM IST
অনলাইনে ভোটার তালিকা সংশোধনের সময়সীমা বাড়াল নির্বাচন কমিশন

নিজস্ব প্রতিবেদন: ভোটার তালিকায় নাম সংশোধন করা নিয়ে মানুষের দুশ্চিন্তার শেষ নেই। এর মধ্যে খানিকটা স্বস্তি দিল নির্বাচন কমিশনের ঘোষণা। ভোটার তালিকা সংশোধনের সময়সীমা ৩৩ দিন বাড়িয়ে দিল কমিশন। অর্থাত্ ১৬ অক্টোবরের পরিবর্তে নির্বাচন কমিশনের ইলেকটর্স ভেরিফিকেশন প্রোগ্রাম বা ইভিপি চলবে ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত।

এখনও পর্যন্ত ভোটার তালিকায় তাদের নামধাম সংশোধন করেছেন রাজ্যের ৩৭ শতাংশ মানুষ। মনে করা হচ্ছে দুর্বল পরিকাঠামোর কারণে তা এখনও করে উঠতে পারেননি বহু মানুষ। ফলে সমস্যা একটা থেকেই যাচ্ছে।

আরও পড়ুন-ইনস্টাগ্রামে ৩ কোটি ছাড়াল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ফলোয়ারের সংখ্যা!

কমিসন সূত্রে জানা যাচ্ছে, আগামী ২৫ নভেম্বর খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশ করে সংশোধনীর কাজ শুরু হবে। চলবে ২৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত। কিন্তু এখনও সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে অনলাইনে দুর্বল নেটওয়ার্ক।

কীভাবে সংশোধন করবেন ভোটার তালিকা  

গুগল PlayStore থেকে ‘Voter Helpline’  অ্যাপ আপনার স্মার্টফোনে ডাউনলোড করে নিন। ডাউনলোডের আগে এই অ্যাপটি ভারতীয় নির্বাচন কমিশনের কিনা, তা দেখে নিতে ভুলবেন না!

PlayStore থেকে ‘Voter Helpline’ স্মার্টফোনে ডাউনলোড করার পর অ্যাপটি আপনার ফোনের বেশ কয়েকটি ড্রাইভের ‘অ্যাক্সেস’ চাইবে। ‘Agree’ অপশনে ক্লিক করে প্রথমে ‘Voter Helpline’-কে আপনার স্মার্টফোনের কয়েকটি ড্রাইভের ‘অ্যাক্সেস’ দিয়ে দিন।

এ বার ‘ইভিপি’ (Electoral Verification Programme) লেখা ট্যাবে ক্লিক করলেই শুরু হয়ে যাবে ভোটারের তথ্য যাচাই করার প্রক্রিয়া। চাওয়া হবে আপনার মোবাইল নম্বর। এই মোবাইল নম্বর লিঙ্ক করা হবে আপনার ভোটার কার্ডের সঙ্গে। আপনার রেজিস্টার করা মোবাইল নম্বরে আসা ওটিপি অ্যাপের নির্দিষ্ট অংশে সাবমিট করে লগ ইন করুন। এ বার এপিক নম্বরের সাহায্যে আপনার ভোটার কার্ডের তথ্য খোঁজা হবে। আপনার তথ্য পাওয়া গেলে ‘its me’ অপশনে ক্লিক করে নিশ্চিত করুন। এর পর মোবাইলের স্ক্রিনে আসা ‘YES’ অপশনে ক্লিক করলেই ভোটার কার্ডের সঙ্গে আপনার রেজিস্টার করা মোবাইল নম্বরটি সংযুক্ত হয়ে যাবে।

আরও পড়ুন-বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের মাধ্যমে ভারতে জাল ছড়াচ্ছে জামাত, মন্তব্য এনআইএর ডিজির

ভোটার কার্ডের সঙ্গে আপনার মোবাইল নম্বরটি সংযুক্ত হয়ে গেলে ‘OK’ অপশনে ক্লিক করলে মোবাইলের স্ক্রিনে খুলে যাবে আপনার ছবি-সহ ভোটার কার্ড। এখানে  ‘MODIFY’ অপশনে ক্লিক করে বদলে ফেলা যাবে আপনার নাম, পদবি, ঠিকানা-সহ তথ্য। তবে এর জন্য উপযুক্ত নথিপত্রের ছবি বা পিডিএফ ফাইল অ্যাপের নির্দিশ্য জায়গায় আপলোড করতে হবে। এর জন্য ‘Type of Document’-এ ক্লিক করে উপযুক্ত ডকুমেন্ট আপলোড করতে হবে। এ বার জিপিএস-এর (GPS) মাধ্যমে আপনার বর্তমান ঠিকানা আর অবস্থান (কারেন্ট লোকেশন) সম্পর্কিত তথ্য ইলেকশন কমিশনে দফতরের নির্দিষ্ট সিস্টেমে নথিভুক্ত হয়ে যাবে।