করোনা রোগীদের রামদেবের দাওয়াই বিনামূল্যে দেবে হরিয়ানার বিজেপি সরকার

সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রশ্ন উঠেছে, যার যথাযথ বিচারে এখনও সুবজ সংকেত মেলেনি, কীভাবে সেই ওষুধ রোগীকে দেওয়া যাবে? 

Updated By: May 25, 2021, 10:56 AM IST
করোনা রোগীদের রামদেবের দাওয়াই বিনামূল্যে দেবে হরিয়ানার বিজেপি সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদন: বিনামূল্যে করোনা আক্রান্তদের দেওয়া হবে রামদেবের দাওয়াই কোরোনিল। এমনই সিদ্ধান্ত নিয়েছে হরিয়ানার বিজেপি সরকার। সে রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী অনিল ভিজ টুইট করে সেই বার্তা দিয়েছেন সোমবার। এরপরই একাধিক মহলে উঠেছে সমালোচনার ঝড় । সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রশ্ন উঠেছে, যার যথাযথ বিচারে এখনও সুবজ সংকেত মেলেনি, কীভাবে সেই ওষুধ রোগীকে দেওয়া যাবে? 

টুইট করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী অনিল ভিজ জানিয়েছেন, “এক লাখ পতঞ্জলি করোনিল কিট হরিয়ানার করোনা রোগীদের বিনামূল্যে দেওয়া হবে। এর অর্ধেক খরচ পতঞ্জলি ও অর্ধেক খরচ হরিয়ানা সরকারের করোনা রিলিফ ফান্ড বহন করবে।”

 ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের সমালোচনার আগে বিতর্কিত ওষুধকে স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধনে সবুজ সংকেত দিয়েছিল। পাশাপাশি তিনি এও বলেছিলেন, করোনার জন্য এটাই নাকি প্রথম ওষুধ। যা কোভিড মুক্ত করবে। কিন্তু যার কোনও বৈজ্ঞানিক তথ্য নেই। কীভাবে দেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী এই ওষুধকে জনসাধারণের সামনে তুলে ধরলেন তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে একাংশ। 

 

তবে যোগগুরু রামদেব  Covid-19 রোধে পতঞ্জলি ওষুধ নিয়ে গবেষণা পত্র প্রকাশ করেছিলেন। পতঞ্জলি সংস্থা থেকে জানানো হয়েছে, WHO-এর শংসাপত্রের স্কিম অনুযায়ী সেন্ট্রাল ড্রাগস স্ট্যান্ডার্ড কন্ট্রোল অর্গানাইজেশন ও আয়ুশ বিভাগ থেকে Pharmaceutical Product (CoPP) সার্টিফিকেট পেয়েছে Coronil। Pharmaceutical Product (CoPP) সার্টিফিকেটের আওতায় Coronil ১৫৮ টি দেশে রফতানি করা যাবে। এই বিষয়ে বাবা রামদেব বলেন, 'এখন থেকে প্রাকৃতিক চিকিৎসার ভিত্তিতে সাশ্রয়ী মূল্যের চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব হবে '। 

তবে, বৈজ্ঞানিক পেপার বের হয়েছে ঠিকই, কিন্তু তাতে নেই World Health Organisation (WHO) এর স্বাক্ষর, স্পষ্ট করে জানিয়ে দিল পতঞ্জলি। অন্যদিকে, WHO এর তরফে জানান হয়েছে, তারা কোনও সার্টিফিকেট দেয়নি পতঞ্জলির তৈরি Coronil -কে। এমনকি ওষুধের রিভিউ পর্যন্ত করা হয়নি। 

অন্যদিকে, রামদেবের কথায়, "উপস্থাপিত তথ্যের ভিত্তিতে, আয়ুশ মন্ত্রক করোনিল ট্যাবলেটকে COVID-19 এর সঙ্গে লড়াই করার ওষুধ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে"।