close

News WrapGet Handpicked Stories from our editors directly to your mailbox

মাহেন্দ্রক্ষণ দুপুর ২.৪৩ মিনিট, ত্রুটি সারিয়ে চাঁদে যেতে প্রস্তুত চন্দ্রযান-২

আজ সফলভাবে বাহুবলী উত্ত্ক্ষেপণে সম্ভব? ইসরোর বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, প্রযুক্তগত ত্রুটি সারানো গিয়েছে। পুঙ্খানুপুঙ্খ পর্যবেক্ষণ করে দেখা হয়েছে

Updated: Jul 23, 2019, 02:29 PM IST
মাহেন্দ্রক্ষণ দুপুর ২.৪৩ মিনিট, ত্রুটি সারিয়ে চাঁদে যেতে প্রস্তুত চন্দ্রযান-২
ফাইল চিত্র

নিজস্ব প্রতিবেদন: প্রহর গুনছে দেশবাসী। যদি সব ঠিকঠাক থাকে তাহলে আজ দুপুর ২.৪৩ মিনিটে চাঁদে পাড়ি দেবে চন্দ্রযান ২। জিওসিঙ্ক্রোনাস স্যাটেলাইট লঞ্চ ভেহকল মার্ক ৩ (জেএসএলভি এমকে ৩) ‘ওরফে’ বাহুবলী উত্ক্ষেপণ হবে অন্ধ্র প্রদেশের শ্রীহরিকোটা থেকে। উল্লেখ্য, গত সোমবারে প্রযুক্তগত ত্রুটির জন্য ওই রকেটকে উত্ক্ষেপণ করা যায়নি।

চন্দ্রযান-২ উত্ক্ষেপণের ঘণ্টাখানেক আগে তরল জ্বালানি চালিত রকেটের একটি ভাল্বে ত্রুটি ধরা পড়ে। ভাল্ব থেকে লিক করছিল হিলিয়াম গ্যাস। উত্ক্ষেপণের ৫৬ মিনিট ২৪ সেকেন্ড আগে রুখে দেওয়া হয় বাহুবলীর যাত্রা। ইসরোর এক আধিকারিক জানান, শেষ মুহূর্তে ওই ত্রুটি ধরা না পড়লে একশো কোটি দেশবাসীর স্বপ্নভঙ্গ হতে পারত। গুরুতর সমস্যা থাকা সত্ত্বেও সৌভাগ্যক্রমে ওই ত্রুটি ধরতে সক্ষম হন বিজ্ঞানীরা। এতদিনের পরিশ্রম জলে চলে যেতে পারত।

আরও পড়ুন- যারা কাশ্মীরের সম্পদ লুঠ করছে, তাদের মারো! বেফাঁস মন্তব্যে বিতর্কে জম্মু-কাশ্মীরের রাজ্যপাল

আজ সফলভাবে বাহুবলী উত্ত্ক্ষেপণে সম্ভব? ইসরোর বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, প্রযুক্তগত ত্রুটি সারানো গিয়েছে। পুঙ্খানুপুঙ্খ পর্যবেক্ষণ করে দেখা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত কোনও সমস্যা নেই বলে জানান তাঁরা। তবে, আবহাওয়া খারাপ হলে বেগ পেতে পারে চন্দ্রযান যাত্রা। বিজ্ঞানীরা জানান, বৃষ্টিতে রকেট উত্ক্ষেপণে কোনও সমস্যা নেই। কিন্তু বজ্র-বিদ্যুত আবহে ক্ষতি হতে পারে রকেটের। শ্রীহরিকোটায় আবহাওয়া পরিস্কার বলে জানা যাচ্ছে।

বাহুবলী রকেটে চড়ে চাঁদের কক্ষ পথে প্রবেশ করবে ল্যান্ডার ‘বিক্রম’। প্রখ্যাত বিজ্ঞানী তথা ইসরোর প্রতিষ্ঠাতা বিক্রম সারাভাইয়ের নামে নামকরন করা হয় ওই ল্যান্ডারের। এই ল্যান্ডারের সঙ্গে রয়েছে রোভার ‘প্রজ্ঞান’ যে চাঁদ থেকে ছবি ও তথ্য পাঠাতে সাহয্য করবে। চন্দ্রযান-২ সফল যাত্রা হলে রাশিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, চিনের পরই  চাঁদে যান পাঠানোয় ভারত চতুর্থ স্থানে চলে আসবে। উল্লেখ্য, এই প্রোজেক্টে ব্যয় হচ্ছে এক হাজার কোটি টাকা। যা একটি হলিউড সিনেমার সমান। এমনকি নাসার কোনও প্রোজেক্টে ২০ গুন কম খরচে চাঁদে পাড়ি দিচ্ছে চন্দ্রযান-২। বলাই যায়, এমন সস্তায় চাঁদে পাড়ি দেওয়ায় প্রথম দিশা দেখাতে চলেছে ভারতই।