Lok Sabha elections 2024: পথে এবার নমো! পরাজিত আসনে জিততে মোদীর নয়া পরিকল্পনা

Lok Sabha elections 2024: ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনের ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি চায় না পদ্মশিবির। এখন থেকেই সেই তোড়জোড় শুরু হয়েছে। ২০২৪-এর নির্বাচনের আগে তাই জনগণের দুয়ারে পৌঁছতে মরিয়া বিজেপি। প্রথম সারির নেতৃত্ব থেকে খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, কৌশল তৈরি করেই পা ফেলবেন। পরাজিত বা পিছিয়ে পড়া আসনগুলি পেতে তৈরি হল ৫ দফা পরিকল্পনাও। 

Updated By: Oct 9, 2022, 12:10 PM IST
Lok Sabha elections 2024: পথে এবার নমো! পরাজিত আসনে জিততে মোদীর নয়া পরিকল্পনা
ফাইল ছবি

জি ২৪ ঘণ্টা ডিজিটাল ব্যুরো:  পরবর্তী লোকসভা নির্বাচনের (Lok Sabha elections 2024) আগে কোমর বেঁধে আসরে নামতে চলেছে ভারতী জনতা পার্টি। ২০১৯ -এর নির্বাচনে হেরে যাওয়া ১৪৪ টি আসনে ৪০ টি সমাবেশের পরিকল্পনা করছে বিজেপি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Prime Minister Narendra Modi) নিজে প্রতিটি ব্লকে একটি করে জনসভা করবেন। দেশজুড়ে নমো-যাত্রা, হেরে যাওয়া আসনে জিততে মোদীর নয়া স্ট্র‍্যাটেজি। বিজেপি সূত্রে খবর, লোকসভা প্রভাস যোজনার দ্বিতীয় পর্যায়ে যা পরিকল্পনা হয়েছে তাতে দেশের ১৪৪টির মধ্যে পরাজিত লোকসভা আসনগুলির দিকে বিশেষ নজর দেবে পদ্মশিবির। এর মধ্যে ৪০টি আসনে বড় সমাবেশ করবেন মোদী। প্রধানমন্ত্রীর এই ৪০টি জনসভা ৪০ টি ব্লকের সবকটিতেই হতে চলেছে। 

আরও পড়ুন, Asaduddin Owaisi : "আমরাই গর্ভনিরোধক বেশি ব্যবহার করি", মুসলিম জনসংখ্যা নিয়ে প্রতিক্রিয়া ওয়াইসির

সূত্রের খবর, বাকি ১০৪ টি আসনে বিজেপি সভাপতি জেপি নাড্ডা, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এবং অন্যান্য কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা দলের হয়ে প্রচার করবেন, মিটিংয়ে অংশ নেবেন। বিজেপি নেতৃত্বের উপস্থিতিতেই প্রভাবশালী স্থানীয় নেতাদের সঙ্গে নিয়মিত বৈঠক করতে হবে। এমনকী বিজেপির স্থানীয় অসন্তুষ্ট নেতাদের অভিযোগও শুনে তার সমাধান দিতে হবে। ‘প্রবাস’ যোজনার দ্বিতীয় পর্যায়ে কেন্দ্রীয় সরকারের ৪০ জন মন্ত্রীকে ৫-দফা কাজ করতে হবে। সূত্রের খবর, গেরুয়া শিবিরের তরফে এই স্ট্র্যাটেজিই শিরোধার্য হয়েছে। 

এই ৫ দফা কাজগুলি হল-  প্রথম – প্রচার কর্মসূচি রূপায়ণ, দ্বিতীয় – জনমুখী কর্মসূচি, তৃতীয় – রাজনৈতিক ব্যবস্থাপনা, চতুর্থ – দলের ভাবমূর্তি সহজভাবে তুলে ধরার পরিকল্পনা করা, পঞ্চম – লোকসভা কেন্দ্রগুলিতে দিনরাত থেকে কাজ করা। এই সময়ে ব্লকের দায়িত্বে থাকা মন্ত্রীকে স্থানীয় ধর্মীয় নেতা, সেয়ার এবং বিভিন্ন সম্প্রদায়ের স্থানীয় নেতাদের দুয়ারে দুয়ারে গিয়ে মিটিং করতে হবে এবং স্থানীয় সম্প্রদায়ের উৎসব এবং রীতিনীতি, স্থানীয় মেলায় সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করতে হবে। এমনকী সংঘ অনুমোদিত সমস্ত সংস্থার স্থানীয় কর্মকর্তা এবং মূল কর্মীদের পাশাপাশি দায়িত্বে থাকা মন্ত্রী এবং সংগঠনের নেতার সঙ্গে আলোচনায় বসতে হবে।

আরও পড়ুন, লালু প্রসাদের বিরুদ্ধে চার্জশিট! সমর্থনে এগিয়ে এলেন নিতিশ...

(Zee 24 Ghanta App দেশ, দুনিয়া, রাজ্য, কলকাতা, বিনোদন, খেলা, লাইফস্টাইল স্বাস্থ্য, প্রযুক্তির লেটেস্ট খবর পড়তে ডাউনলোড করুন Zee 24 Ghanta App)