মসনদে মুলায়ম

বুথ ফেরত সমীক্ষাতেই সমাজবাদী পার্টির নজিরবিহীন সাফল্যের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু মুলায়ম সিং যাদবের দল যে এভাবে প্রতিষ্ঠান বিরোধী হাওয়ার পুরোটাই নিজেদের পালে টেনে নিয়ে উত্তরপ্রদেশে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে তা আঁচ করতে পারেননি ভোট পণ্ডিতরা!

Updated By: Mar 6, 2012, 02:47 PM IST

বুথ ফেরত সমীক্ষাতেই সমাজবাদী পার্টির নজিরবিহীন সাফল্যের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু মুলায়ম সিং যাদবের দল যে এভাবে প্রতিষ্ঠান বিরোধী হাওয়ার পুরোটাই নিজেদের পালে টেনে নিয়ে উত্তরপ্রদেশে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে তা আঁচ করতে পারেননি ভোট পণ্ডিতরা!
ভোট গণনার ঘোষিত ফলাফলে স্পষ্ট, কংগ্রেস-আরএলডি জোট এবং বিজেপি'কে পিছনে ফেলে মায়াবতী সরকারের বিরুদ্ধে ৫ বছরের `অ্যান্টি ইনকামবেন্সি ফ্যাক্টর`-এর ফসল ঘরে তুলেছে সমাজবাদী পার্টি। এবারই প্রথম রাজ্য বিধানসভার ৪০৩ আসনের মধ্যে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য প্রয়োজনীয় `ম্যাজিক ফিগার` ২০২ অতিক্রম করে ২২৬-এ পৌঁছেছে মুলায়মের দল। অন্য দিকে গতবারের আসনসংখ্যার অর্ধেকেরও নীচে নেমে গিয়ে মাত্র ৮০টি আসনে জিতে প্রধান বিরোধী দল হয়েছে মায়াবতীর বহুজন সমাজ পার্টি।
মঙ্গলবার সকালে ভোট গণনার প্রাথমিক প্রবণতা অনুযায়ী চমকপ্রদ ফলের ইঙ্গিত দিলেও শেষ পর্যন্ত আশাভঙ্গ হয়েছে বিজেপি`র। নিতিন গডকড়ির দলের দৌড় থেমে গিয়েছে ৪৭-এ। তবে সবচেয়ে বড় আশাভঙ্গ হয়েছে কংগ্রেসের। রাহুল গান্ধীর `প্রচারঝড়` কার্যত অসার প্রমাণিত হয়েছে গোবলয়ের হৃদয়পুরে। সংখ্যাতত্ত্বের নিরিখে আসন বাড়লেও এবারও চতুর্থ স্থান নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হচ্ছে কংগ্রেসকে। ভোটের ফলাফলে স্পষ্ট, জাঠ নেতা অজিত সিংয়ের নেতৃত্বাধীন আরএলডি`র হাত ধরে কোনও লাভ হয়নি কংগ্রেসের। এই জোটের দখলে গিয়েছে মাত্র ৩৮টি আসন। নির্দল ও অন্যান্য দলগুলির পেয়েছে ১২টি আসন। এমনকী রায়বরেলি, আমেথির মতো আসনও কংগ্রেসের হাতছাড়া হয়েছে।
উল্লেখযোগ্য জয়ী প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন সমাজবাদী পার্টির আজম খান, মিত্রসেন যাদব, মাতপ্রসাদ পাণ্ডে, মুলায়মের ভাই শিবপাল সিং যাদব, কংগ্রেসের রীতা বহুগুণা যোশি, আপনা দলের অনুপ্রিয়া পটেল, বিজেপির উমা ভারতী, কলরাজ মিশ্র, পিস পার্টির প্রধান ড. আয়ুব। অন্যদিকে রাজ্য বিধানসভার স্পিকার, বিএসপির সুখদেও রাজভর, রাজ্য বিজেপি সভাপতি সূর্যপ্রতাপ শাহী, দলের অন্যতম নেতা কেশরীনাথ ত্রিপাঠী, আমেথির কংগ্রেস বিধায়ক অমিতা মোদি ভোটে হেরেছেন। আসলে কেন্দ্রে সরকার চালাতে গিয়ে একের পর এক কেলেঙ্কারির জর্জরিত কংগ্রেস উত্তরপ্রদেশে দুর্নীতিমুক্ত সরকার উপহার দেবে, রাহুলের এই প্রতিশ্রুতিতে ভরসা রাখতে পারেননি রাজ্যের 'আম আদমি'। সেই সঙ্গে মুল্যবৃদ্ধি ফ্যাক্টরও কংগ্রেসের বিপক্ষে গিয়েছে।

২০০৭ সালের বিধানসভা ভোটে উত্তরপ্রদেশে বিএসপি ২০৬ এবং সমাজবাদী পার্টি ৯৭টি আসনে জয়ী হয়েছিল। এককভাবে লড়ে বিজেপি, কংগ্রেস এবং আরএলডি প্রার্থীরা জিতেছিলেন যথাক্রমে ৫১, ২২ এবং ১০টি কেন্দ্রে। এবার অন্তত যাদব-সহ নানা পিছড়ে বর্গ এবং চিরাচরিত মুসলিম ভোটব্যাঙ্কের পাশাপাশি বহিনজি-বিরোধী উচ্চবর্ণের উল্লেখযোগ্য অংশের সমর্থন পেয়েছেন মুলায়ম। আর তারই জেরে ২০২-এর `লক্ষণরেখা` পেরিয়ে গিয়েছে সমাজবাদী পার্টি। ফলে সরকার গড়ার জন্য উত্তরপ্রদেশের যাদব কুলপতিকে আর কংগ্রেসের উপর নির্ভর করতে হচ্ছে না।
এদিন ভোট গণনার 'ট্রেন্ড' স্পষ্ট হওয়ার পর সাংবাদিক বৈঠক করে সমাজবাদী পার্টির নির্বাচনী ইস্তেহারে ভরসা রাখার জন্য উত্তরপ্রদেশের জনগণকে ধন্যবাদ জানান মুলায়ম-পুত্র অখিলেশ। সেই সঙ্গে তিনি জানান, পাঁচ বছর পর লখনউয়ের কুরসি ফিরে পেলেও প্রতিহিংসার রাজনীতি করবে না সমাজবাদী পার্টি। হাত দেওয়া হবে না, অম্বেডকর পার্ক কিংবা দলিত প্রেরণাস্থলের হাতি এবং মায়াবতীর মূর্তিতে।