বিশ্বের প্রথম হাইটেক ক্রিকেট স্টেডিয়াম হচ্ছে ভারতে, বৃষ্টিতে আর ম্যাচ বাতিল হবে না

গ্রিন বিল্ডিংস কনসেপ্ট অনুযায়ী তৈরি করা হচ্ছে এই স্টেডিয়াম। 

Edited By: সুমন মজুমদার | Updated By: Jun 28, 2020, 02:13 PM IST
বিশ্বের প্রথম হাইটেক ক্রিকেট স্টেডিয়াম হচ্ছে ভারতে, বৃষ্টিতে আর ম্যাচ বাতিল হবে না

নিজস্ব প্রতিবেদন - বিশ্বের সব থেকে বড় ক্রিকেট স্টেডিয়াম হয়েছে ভারতে। এবার বিশ্বের প্রথম হাইটেক ক্রিকেট স্টেডিয়ামও তৈরি হবে ভারতে। এই স্টেডিয়ামে যা সুযোগ সুবিধা রয়েছে তা বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রিকেট স্টেডিয়াম মোতেরাতেও নেই। জানা যাচ্ছে, এবার বৃষ্টি হলেও ম্যাচ বন্ধ হবে না। সাধারণত ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ছাদ থাকে না। কিন্তু চণ্ডীগড়ের নির্মীয়মাণ এই হাইটেক স্টেডিয়ামে বৃষ্টি থেকে ম্যাচ বাঁচানোর যাবতীয় ব্যবস্থা থাকবে। এছাড়াও বহু অত্যাধুনিক ব্যবস্থা থাকবে মুল্লাপুর আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে। আসলে গ্রিন বিল্ডিংস কনসেপ্ট অনুযায়ী তৈরি করা হচ্ছে এই স্টেডিয়াম। 

আট লাখ স্কোয়ার ফিট জায়গা জুড়ে তৈরি করা হচ্ছে এই হাইটেক স্টেডিয়াম। খরচ হচ্ছে দেড়শো কোটি টাকা। জানা গিয়েছে মোহালি স্টেডিয়াম-এর থেকে তিনগুণ বড় হবে এই স্টেডিয়াম। যে কোনও প্রতিকূল পরিস্থিতিতে এই স্টেডিয়ামে ম্যাচ আয়োজন করা সম্ভব হবে। বৃষ্টি বা রোদের হাত থেকে বাঁচতে পারবেন দর্শকরাও। রেইন ওয়াটার হারভেস্টিং সিস্টেম থাকবে স্টেডিয়ামে। যাতে বৃষ্টির জল ধরে রেখে তা আবার নতুন করে ব্যবহার করা যায়! এছাড়া গোটা স্টেডিয়ামের ইলেকট্রিসিটি চলবে সৌর বিদ্যুতের মাধ্যমে। স্টেডিয়ামের বিস্তীর্ণ জায়গা জুড়ে লাগানো হবে গাছ। যাতে প্রাকৃতিক শোভা বজায় থাকে। 

আরও পড়ুন- সুশান্তের সঙ্গে দেখা হয়েছিল শোয়েব আখতারের, সেদিন কথা বলেননি

বৃষ্টির জন্য কোনওভাবেই আর ম্যাচ পণ্ড হবে না। জানা যাচ্ছে এই স্টেডিয়ামে ড্রেনেজ সিস্টেম এতটাই ভাল থাকবে যে বৃষ্টি থামার আধ ঘন্টার মধ্যে খেলা শুরু করা যাবে। তাছাড়া বৃষ্টি চলাকালীন পিচ ও আউটফিল্ডের কোনওরকম ক্ষতিও হবে না।  হাইটেক স্টেডিয়ামে দর্শকদের সুখ-স্বাচ্ছন্দ্যের কথা মাথায় রাখা হয়েছে। বৃষ্টি বা রোদের হাত থেকে দর্শকরা এবার বাঁচতে পারবেন। তবে কবে নাগাদ এই স্টেডিয়ামের নির্মাণকাজ শেষ হবে তা এখনও পাকাপাকিভাবে কিছু জানানো হয়নি। জানা যাচ্ছে ইতিমধ্যে হাইটেক স্টেডিয়াম তৈরির কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। কাজ অনেক দূর এগিয়েছে। তবে যেহেতু অত্যাধুনিক ব্যবস্থা থাকবে, তাই এই স্টেডিয়াম নির্মাণের সময় লাগবে অনেকটাই বেশি।