"নিষেধাজ্ঞা অযৌক্তিক, রথযাত্রা সম্পূর্ণ একটি রাজনৈতিক কর্মসূচি"

যাত্রার ১২ ঘণ্টা আগে তা প্রশাসনকে জানাতে হবে। যাত্রায় ১৫০০ জনের বেশি ভিড় জমানো যাবে না।

Updated By: Dec 20, 2018, 03:10 PM IST
"নিষেধাজ্ঞা অযৌক্তিক, রথযাত্রা সম্পূর্ণ একটি রাজনৈতিক কর্মসূচি"

নিজস্ব প্রতিবেদন: আদালতের রায় বাংলার মানুষের জয়। বিজেপির রথযাত্রা হাইকোর্টের অনুমতি প্রসঙ্গে বললেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়। রাজ্যের নির্দেশ খারিজ করে বিজেপির রথযাত্রায় অনুমতি দিয়েছে হাইকোর্ট। আদালতের রায়ে উচ্ছ্বসিত গেরুয়া শিবির।

রায় ঘোষণার পরই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে রাজ্য সরকারের উদ্দেশে তোপ দাগেন মুকুল রায়।  বলেন, রাজ্য সরকারের নিষেধাজ্ঞা অনৈতিক, অযৌক্তিক ও বেআইনি। আদালত যাত্রার পথে যাবতীয় বাধা দূর করে দিয়েছে। কিছুক্ষণ পরই বৈঠকে বসে রথযাত্রার দিনক্ষণ চূড়ান্ত করা হবে।

আরও পড়ুন, পরকীয়ায় জড়িয়ে স্ত্রী? সন্দেহে গোপনাঙ্গে ছুরি ঢুকিয়ে খুনের চেষ্টা স্বামীর

বিজেপির রথযাত্রায় উত্তেজনা তৈরি হবে। প্রাণহানির আশঙ্কা রয়েছে। এই দাবিতে রথযাত্রার অনুমতি দেয়নি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকার। অনুমতি আদায়ে এরপরই আদালতের দ্বারস্থ হয় বিজেপি। উভয়পক্ষের সওয়াল জবাবের পর রাজ্য সরকারের অবস্থানেই অসন্তোষ ও ক্ষোভ ব্যক্ত করেন বিচারপতি তপোব্রত চক্রবর্তী। এদিন রায় ঘোষণা করে বিজেপির রথযাত্রায় অনুমোদন দেন বিচারপতি।

রাজ্য সরকারের দাবির প্রেক্ষিতে শুধুমাত্র কয়েকটি শর্ত আরোপ করেছেন বিচারপতি তপোব্রত চক্রবর্তী। রায়ে বলা হয়েছে, কোনওরকম অঘটন বা অপ্রীতিকর পরিস্থিতির দায়িত্ব বিজেপিকে নিতে হবে। যে জায়গা দিয়ে রথ যাবে, যাত্রার ১২ ঘণ্টা আগে তা প্রশাসনকে জানাতে হবে। যাত্রায় ১৫০০ জনের বেশি ভিড় জমানো যাবে না।

আরও পড়ুন, বাড়িভাড়া আসার ৪ দিনের মাথায় 'রহস্যজনকভাবে' খুন, খালপাড়ে মিলল দেহ

আদালতের রায়কে স্বাগত জানিয়েছেন বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়। আদালতের রায়ের প্রেক্ষিতে তিনি সাফ বলেন, বিজেপি রথযাত্রা সম্পূর্ণরূপে একটি রাজনৈতিক কর্মসূচি। পশ্চিমবঙ্গে প্রতিদিন গণতন্ত্র ধংবস করা হচ্ছে। এরাজ্যে গণতন্ত্রকে বাঁচানোর লক্ষ্যে জনতার কাছে পৌঁছতেই রথযাত্রা।  এই যাত্রার মাধ্যমে কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের সুযোগ সুবিধা সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করা হবে। আইন-শৃঙ্খলা মেনেই যাত্রা হবে। আরও পড়ুন, বড় জয় বিজেপির, রাজ্যের নির্দেশ খারিজ করে রথযাত্রার অনুমতি দিল হাইকোর্ট