close

News WrapGet Handpicked Stories from our editors directly to your mailbox

দলের লোকেরাই হামলা চালিয়েছে লকেটের বাড়িতে, স্পষ্ট করলেন বিজেপি নেতা

স্বপন পাল বলেন, "এটা নিজেদের ব্যাপার। মিটে যাবে।"

Updated: Apr 19, 2019, 05:28 PM IST
দলের লোকেরাই হামলা চালিয়েছে লকেটের বাড়িতে, স্পষ্ট করলেন বিজেপি নেতা

নিজস্ব প্রতিবেদন : শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের দিকে অভিযোগের আঙুল উঠেছিল। কিন্তু সেই অভিযোগের তির ঘুরে গেল নিজের দলের দিকেই। বিজেপি ওবিসি মোর্চার রাজ্য সভাপতি স্বপন পাল স্পষ্ট জানালেন, লকেট চট্টোপাধ্যায়ের বাড়িতে হামলা চালিয়েছে, ভাঙচুর করেছে দলের লোকেরাই। লকেট চট্টোপাধ্যায়ের চুঁচুড়ার বাড়িতে হামলার ঘটনায় সিলমোহর পড়ল গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের তত্ত্বেই।

হামলার ঘটনাকে 'ছোট বিষয়' বলে উল্লেখ করে সাংবাদিকদের  প্রশ্নে  স্বপন পাল বলেন, "এটা নিজেদের ব্যাপার। মিটে যাবে।" তবে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের অভিযোগ মানতে রাজি হননি স্বপন পাল। তিনি বলেন, প্রার্থী একজন বড় শিল্পী। তারকা প্রার্থী। তাঁর ডিমান্ডও প্রচুর। দলীয় কর্মীরা সবাই চাইছেন যে প্রার্থী তাঁদের এলাকায় গিয়ে প্রচার করুক। প্রার্থী সারাদিন ধরেই প্রচার করছেন। কিন্তু, তারপরেও শরীরের ভালো-মন্দের একটা বিষয় থাকে। এত বড় লোকসভা কেন্দ্রে লকেটদেবীর পক্ষে সব জায়গায় যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। আর সেই কারণেই ক্ষুব্ধ দলীয় কর্মীদের একাংশ তাঁর ঘরে ঢুকে পড়ে। ভাঙচুর চালায়। যদিও একে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বলতে নারাজ স্বপন পাল।

আরও পড়ুন, নব্বই শতাংশ বুথেই আধাসেনা! তৃতীয় দফায় আরও ৫০ কোম্পানি বাহিনীর দাবি

প্রসঙ্গত, শুক্রবার সকালে ব্যান্ডেলের লিচুতলায় লকেট চট্টোপাধ্যায়ের বাড়িতে হামলার ঘটনা ঘটে। হুগলি লোকসভা কেন্দ্রে বিজেপি প্রার্থী লকেট চট্টোপাধ্যায়। নির্বাচনী প্রচারের কাজের জন্য এখন লিচুতলার বাড়িতেই রয়েছেন লকেট। বাড়ির নীচেই রয়েছে পার্টি অফিস। এদিন সকালে সেখানেই হামলা চালানো হয়। ইট ছুঁড়ে মারা হয়। ভাঙচুর করা হয় চেয়ার, টেবিল। ছিঁড়ে দেওয়া হয় দলীয় পতাকা। এই ঘটনায় প্রাথমিকভাবে শাসকদলের দিকে অভিযোগের আঙুল উঠলেও, স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব প্রথম থেকেই বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ব্যাপারেই সরব ছিলেন।

উল্লেখ্য, বহিরাগত লকেট চট্টোপাধ্যায়কে প্রার্থী করায় ঘোষণার পরই দলের অন্দরে মাথাচাড়া দিয়েছিল অসন্তোষ। এদিনের ঘটনাও তার-ই বহিঃপ্রকাশ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। যদিও স্বপন পাল জানিয়েছেন, "এ নিয়ে তাঁরা দলে আলোচনা করবেন। একদিকে দলীয় কর্মীদেরও তাঁর এলাকায় প্রচারের চাহিদা থাকবে। তবে লকেটদেবীর পক্ষেও সব জায়গাতেই যাওয়া সম্ভব নয়।"