পুলকার দুর্ঘটনায় বেপরোয়া গতিই কাল, SSKM-এ একমো চিকিত্সায় সাড়া দিচ্ছে ঋষভ

পোলবা পুলকার দুর্ঘটনায় গুরুতর জখম ঋষভ সিং। এসএসকেএমে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে দ্বিতীয় শ্রেণির পড়ুয়া। 

Updated By: Feb 15, 2020, 11:27 PM IST
পুলকার দুর্ঘটনায় বেপরোয়া গতিই কাল, SSKM-এ একমো চিকিত্সায় সাড়া দিচ্ছে ঋষভ

নিজস্ব প্রতিবেদন: মাঝেমধ্যেই গাড়ি বদল করত ঋষভের পুলকার চালক সামিম আখতার। দুর্ঘটনার পর তদন্তে উঠে এই চাঞ্চল্যকর তথ্য। দিল্লি রোডের রাস্তার বাঁকেই লুকিয়ে আছে মরণফাঁদ।  সঙ্গে যাবতীয় বেনিয়ম নিয়ে চলেছে পুলকার। পোলবা দুর্ঘটনার পর ক্ষোভ  উগরে দিয়েছেন বাসিন্দারা। দুর্ঘটনার পর  সকাল থেকেই দিল্লি রোডে বেড়েছে পুলিসি নজরদারি। আজ ঘটনাস্থল ঘুরে দেখেন ফরেনসিক দলের প্রতিনিধিরা। দ্বিতীয় শ্রেণির পড়ুয়া ঋষভ সিং এর চিকিত্‍সায় একমো পদ্ধতি ব্যবহারে এসেছে সাফল্য। পুলকার দুর্ঘটনায় গুরুতর জখম ঋষভ চিকিত্‍সায় সাড়া দিচ্ছে। বিধি না মানলে পুলকারগুলির বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। 

পোলবা পুলকার দুর্ঘটনায় গুরুতর জখম ঋষভ সিং। এসএসকেএমে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে দ্বিতীয় শ্রেণির পড়ুয়া। ঋষভের পরিবার জানিয়েছে যে পুলকারে প্রতিদিন ঋষভ সেই পুলকারে গেলে হয়তো দুর্ঘটনা এড়াতে পারতো তাদের সন্তান। পুলকার চালক  সামিম আখতারের গাড়িতেই প্রতিদিন যেত ঋষভ। শুক্রবার সামিম মাঝপথেই গাড়ি থামিয়ে পবিত্র দাসের পুলকারে ঋষভকে তুলে দেয়। সেই গাড়িই দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। ঘটনার পর থেকেই বেপাত্তা শেওড়াফুলির চাতরার বাসিন্দা  পুলকার চালক সামিম আখতার। মাঝপথে কেন ঋষভকে পবিত্রের গাড়িতে তুলে দিয়েছিল সামিম? সামিমের পরিবার জানিয়েছেন, পড়ুয়ার সংখ্যা কম থাকাতেই শুক্রবার মাঝপথে পবিত্রের গাড়িতে ঋষভকে তুলে দেয়। দুর্ঘটনার নেপথ্যে পুলকারের বেপরোয়া গতিকেই কাঠগড়ায় তুলছেন বাসিন্দারা। 

 এসএসকেএম হাসপাতাল সূত্রের খবর, প্রচুর পাঁক ঢোকায় দু’জনেরই ফুসফুস প্রায় কাজ করছে না। তাদের চিকিত্সার জন্য চেস্ট মেডিসিন, কার্ডিয়ো-থোরাসিক, পেডিয়াট্রিক সার্জারি, নিউরো সার্জারি, সিসিইউ-সহ সাত বিভাগের চিকিত্সককে নিয়ে সাত সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। বোর্ডের বক্তব্য দুইজনের মধ্যে ঋষভের আশঙ্কা বেশি সঙ্কটজনক। রাতেই চালু হয়েছে একমো অথবা ‘এক্সট্রাকর্পোরিয়াল মেমব্রেন অক্সিজেনেশন’ পদ্ধতি।  এই প্রথম SSKM -এ প্রয়োগ করা হল এই পদ্ধতি। চিকিত্‍সায় সাড়া দিচ্ছে ঋষভ, এমনটাই জানিয়েছে তাঁর পরিবার। একমো  প্রয়োগে  ঋষভের শারীরিক অবস্থার অনেকটাই উন্নতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিত্‍সকরা। তবে আশঙ্কা এখনও কাটেনি। সর্বক্ষণের পর্যবেক্ষনেই রাখা হয়েছে ক্ষুদে পড়ুয়াকে।

দিল্লি রোডে ডবল লেন, সম্প্রসারিত রাস্তার বাঁকেই লুকিয়ে আছে বিপদ। বাঁক ঘোরার সময়ই ঘটছে অধিকাংশ দুর্ঘটনা, বলছেন বাসিন্দারা। শুক্রবারের ঘটনার পরেই সক্রিয় হয়েছে পুলিস। দিল্লি রোডের ওপরেই স্পিড লেজার গান দিয়ে শুরু হয়েছে গাড়ির গতি মাপা। বেড়েছে নজরদারিও। ৮০ কিলোমিটারের ওপরে গাড়ির গতি থাকলেই চালককে থামিয়ে জরিমানা করা হয়েছে। অভিযুক্ত গাড়ির চালক পবিত্র দাসের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি ধারায় মামলা রুজু করেছে পুলিস। 

আরও পড়ুন- কালীঘাট পার্ক বন্ধ, ফোনে বৃদ্ধের অভিযোগ পেয়ে মেজাজ হারালেন কলকাতার মেয়র