ভোররাতে বাড়ির দেওয়াল ভেঙে রেশন চাল খেয়ে গেল দলছুট হাতি

খেয়ে ফেলে ধান, রেশনের চাল এমনকি ভাতও। ভোরের দিকে সবাই ঘুমিয়ে ছিল। 

Edited By: অধীর রায় | Updated By: Jul 29, 2020, 04:32 PM IST
ভোররাতে বাড়ির দেওয়াল ভেঙে রেশন চাল খেয়ে গেল দলছুট হাতি
নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব প্রতিবেদন: বুধবার ভোররাতে মেদিনীপুর সদর ব্লকের গুড়গুড়িপাল এলাকায় হামলা চালাল একটি দলছুট হাতি। হাতির হামলায় ভেঙে গিয়েছে একাধিক বাড়ি। শুধু বাড়ি ভেঙে ক্ষান্ত থাকেনি বিশ্বকর্মার বাহন। বাড়িঘর ভেঙে রেশনের চাল, রান্না করা ভাত সবকিছু খেয়ে তছনছ করে দিয়ে গিয়েছে। 

পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার মনিদহ গ্রাম পঞ্চায়েতের গুড়গুড়িপাল গ্রামের মুচি হেমরম, ফেলতা ঘড়া ও সঞ্জয় ভুঁইঞাদের বাড়ি ভেঙে ফেলে হাতিটি। খেয়ে ফেলে ধান, রেশনের চাল এমনকি ভাতও। ভোরের দিকে সবাই ঘুমিয়ে ছিল। হাতির ডাকে সময়মত বাড়ি ছেড়ে বেড়িয়ে যায় বলে অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেয়েছেন আক্রান্ত বাড়ির বাসিন্দারা। শিশুদের নিয়ে পালাতে গিয়ে অল্পবিস্তর আহত হয়েছে কয়েকজন।

প্রতিদিন হাতির হানায় পাকা বাড়ি, মাটির বাড়ি ভাঙার ঘটনায় অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে গ্রামবাসীরা। ক্ষোভে ফুঁসছেন বন দফতরের বিরুদ্ধে। বাড়িতে ধান, চাল থাকলেই হাতি গন্ধ পেয়ে হানা দিচ্ছে গৃহস্থের বাড়িতে। প্রতিদিন বাড়ি ভাঙায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে এলাকায়। কয়েকদিন আগে হাতি বাড়ি ভেঙেছে পার্শ্ববর্তী গ্রাম পলাশিয়া, চিলগড়া, এনয়েতপুরেও। 

এলাকাবাসীর ক্ষোভ চাঁদড়া রেঞ্জ অফিসের বিরুদ্ধে। তাঁদের অভিযোগ , মেদিনীপুর শহর লাগোয়া গোপগড় এলাকায় হাতি ঢুকে পড়লে বন দফতরের ডিএফও, এডিএফও হাতি তাড়ানোর ব্যপারে তৎপরতা দেখায়। কিন্তু গুড়গুড়িপাল, চাঁদড়া এলাকায় হাতির এত তান্ডব চলে। কিন্তু কোনও হেলদোল নেই বনকর্মীদের। দলছুট হাতিটির হদিশ পায়নি বনকর্মীরা।