জরুরি অবস্থায় টাকা ধার পান অ্যাপে!

কথায় বলে, 'মানি হ্যায় তো হানি হ্যায়'। প্রবাদটা একেবারেই উপযুক্ত। যতক্ষণ আপনার হাতে টাকা আছে, ততক্ষণ আপনি পৃথিবীর রাজা। আপনাকে ঘিরে থাকবে প্রচুর পরিচিত অপরিচিত মানুষ। আর আপনার হাতে টাকা না থাকলেই তখন আপনি একা। বেঁচে থাকার জন্য টাকার খুবই প্রয়োজন। কিন্তু আমাদের অনেক পরিস্থিতিতে পড়তে হয়। রাস্তায় বেরোলে অনেক সময়েই আমাদের টাকার সমস্যায় পড়তে হয়। দেখা যায়, সেই মুহূর্তে হয়তো টাকার প্রয়োজন, অথচ হাতে সেই পরিমান টাকা নেই। অগত্যা, তখন পরিচিত কারও কাছ থেকে ধার করা ছাড়া আর কোনও উপায় থাকে না। কিন্তু আর আপনাকে সেই সমস্যায় পড়তে হবে না। এসে গেল এমন এক অ্যাপ, যার মাধ্যমে এমার্জেন্সিতে আপনি টাকা ধার করতে পারবেন!

Updated By: May 22, 2016, 01:09 PM IST
জরুরি অবস্থায় টাকা ধার পান অ্যাপে!

ওয়েব ডেস্ক: কথায় বলে, 'মানি হ্যায় তো হানি হ্যায়'। প্রবাদটা একেবারেই উপযুক্ত। যতক্ষণ আপনার হাতে টাকা আছে, ততক্ষণ আপনি পৃথিবীর রাজা। আপনাকে ঘিরে থাকবে প্রচুর পরিচিত অপরিচিত মানুষ। আর আপনার হাতে টাকা না থাকলেই তখন আপনি একা। বেঁচে থাকার জন্য টাকার খুবই প্রয়োজন। কিন্তু আমাদের অনেক পরিস্থিতিতে পড়তে হয়। রাস্তায় বেরোলে অনেক সময়েই আমাদের টাকার সমস্যায় পড়তে হয়। দেখা যায়, সেই মুহূর্তে হয়তো টাকার প্রয়োজন, অথচ হাতে সেই পরিমান টাকা নেই। অগত্যা, তখন পরিচিত কারও কাছ থেকে ধার করা ছাড়া আর কোনও উপায় থাকে না। কিন্তু আর আপনাকে সেই সমস্যায় পড়তে হবে না। এসে গেল এমন এক অ্যাপ, যার মাধ্যমে এমার্জেন্সিতে আপনি টাকা ধার করতে পারবেন!

হঠাত্‌ টাকার প্রয়োজন হলে আর বন্ধুদের কাছে হাত পেতে ধার করার দরকার নেই। এসে গিয়েছে cashE অ্যাপ। এখান থেকেই আপনি এমার্জেন্সি সময়ে টাকা ধার করতে পারবেন।  শুধু আপপনার ফোনে অ্যান্ড্রয়েড থাকতে হবে। তবে টাকা ধার দেওয়ার জন্য cashE অ্যাপের কিছু শর্ত রয়েছে। দেখে নিন কী কী শর্ত রয়েছে।

১) cashE অ্যাপ শুধুমাত্র চাকুরিরত ব্যক্তিদেরই টাকা ধার দেয়। ব্যবসায়ী, কিংবা বেকার লোকেদের টাকা ধার দেয় না।

২) আপনার যত টাকা মাইনে, তার ওপরে সবথেকে বেশি ৪০ শতাংশ টাকা ধার দেবে এই অ্যাপ। এবং ১৫ দিনের জন্য।

৩) ১.৫ শতাংশ সুদে এই অ্যাপ টাকা ধার দেয়।

৪) শুধুমাত্র ফেসবুক এবং LINKEDLN ID থেকে সাইন-ইন করে টাকা ধার নিতে পারবেন।

৫) টাকা ধার নেওয়ার জন্য আপনাকে আমনার ইমেল আইডি, ফোন নম্বর এবং প্যান কার্ডের স্ক্যান কপি জমা দিতে হবে।

৬) এরই সঙ্গে আপনাকে আপনার ঠিকানার তথ্য, পে স্লিপ এবং ব্যাঙ্ক স্টেটমেন্টও জমা দিতে হবে।

৭) যিনি এই সুবিধা ব্যবহার করতে চান, তাঁকে প্রথমে কত টাকা ধার নিচ্ছেন তার ওপর ৪৫০, ৭০০ বা ১২৫০ টাকা প্রসেসিং ফি দিতে হবে। এর পর আর কোনও ফি দিতে লাগবে না।