সন্ত্রাসে মদত দেওয়ায় দোষী সাব্যস্ত হাফিজ সইদ, সাড়ে পাঁচ বছর কারাদণ্ডের নির্দেশ পাক আদালতের

কারাদণ্ডের পাশাপাশি হাফিজ সইদকে ১৫,০০০ টাকা জারিমানও করেছে আদালত

Updated By: Feb 12, 2020, 04:44 PM IST
সন্ত্রাসে মদত দেওয়ায় দোষী সাব্যস্ত হাফিজ সইদ, সাড়ে পাঁচ বছর কারাদণ্ডের নির্দেশ পাক আদালতের

নিজস্ব প্রতিবেদন: সন্ত্রাসে টাকা জোগান দেওয়ার ২টি মামলায় দোষী সাব্যস্ত জামাত-উদ-দাওয়া প্রধান হাফিজ সইদ।  ওই মামলায় তাকে পাঁচ বছর ৬ মাস কারাদণ্ডের আদেশ দিল লাহোরের সন্ত্রাস দমন আদালত। গত ৬ ফেব্রুয়ারি রায়দান স্থগিত রাখে আদালত।

আরও পড়ুন-পঞ্চানন বর্মা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানের কার্ডে নাম-ই নেই! টুইট ক্ষুব্ধ রাজ্যপালের

কারাদণ্ডের পাশাপাশি হাফিজ সইদকে ১৫,০০০ টাকা জারিমানও করেছে আদালত। পাকিস্তানের সন্ত্রাস দমন আইনের ১১ এফ ধারায় তাকে সাজা দিল আদালত।  বুধবার ওই সাজা ঘোষণা করেন বিচারপতি আরশাদ হুসেন ভাট্টা।

২০০৮ সালে মুম্বইয়ে জঙ্গি হামলায় মৃত্যু হয় ১৬৬ জনের।  এরপর মুম্বই হামলার প্রধান কারিগর ও  লস্কর-ই-তৈবার প্রতিষ্ঠাতা হাফিজ সইদেকে আন্তর্জাতিক জঙ্গির তকমা দিয়েছে রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ। ভারত এনিয়ে পাকিস্তানকে বহু তথ্যপ্রমাণ দিলেও এতদিন কোনও ব্যবস্থা নেয়নি পাক সরকার। এর মধ্যে একবার সইদকে গৃহবন্দি করেছিল পাক প্রশাসন।

উল্লেখ্য, হাফিজ সইদের বিরুদ্ধে মোট ২৩টি মামলা রয়েছে । তার পরেও ভারতের আপত্তি সত্বেও  পাকিস্তানের মাটিতে বহাল তবিয়তেই নিজের কাজ চালিয়ে যাচ্ছিল সইদ। পাশাপাশি সন্ত্রাসে টাকার জোগান দেওয়ার জন্য একাধিক সামাজিক সেবা প্রতিষ্ঠান খুলে  চাঁদাও তুলছিল এই জঙ্গি নেতা।

আরও পড়ুন-দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ছাড়াছাড়ি, টিভি শোয়ের দৌলতে ৭৮ বছর পর দেখা হল দুই বোনের

গতবছর ওই  দুই মামলায় জঙ্গিদমন আদালেত  চার্জশিট দেয় পাক পুলিস। শুনানি শুরু হয় ৩০ নভেম্বর। ডিসেম্বর মাসের ১৬ তারিখ থেকে রোজ শুনানি করে মামলার নিস্পত্তি করা হয়।  গত ৩০ জানুয়ারি মামলার সওয়াল শেষ করেন হাফিজের আইনজীবী। শেষপর্যন্ত শুনানি শেষ হয় গত ৬ ফেব্রুয়ারি।