UN: অধিকৃত কাশ্মীর থেকে জঙ্গি ঘাঁটি উৎখাতের দাবি, রাষ্ট্রসংঘের বাইরে PoK অধিবাসীদের বিক্ষোভ

'আমরা আক্রান্ত, নির্যাতিত এবং সন্ত্রাসের শিকার', অভিযোগ অধিকৃত কাশ্মীরের বাসিন্দাদের।

Updated By: Sep 26, 2021, 10:17 AM IST
 UN: অধিকৃত কাশ্মীর থেকে জঙ্গি ঘাঁটি উৎখাতের দাবি, রাষ্ট্রসংঘের বাইরে PoK অধিবাসীদের বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদন: পাক অধিকৃত কাশ্মীরকে  (PoK) কার্যত জঙ্গিদের স্বর্গরাজ্যে পরিণত করছে ইসলামাবাদ। সেখানেকার জমিকে সন্ত্রাসবাদীদের আশ্রয়স্থল করে তোলা হয়েছে। এই অভিযোগে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সরব হলেন পাক অধিকৃত কাশ্মীর  (PoK) এবং গিলগিট-বালতিস্তানের রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরা। 

রাষ্ট্রসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের বাইরে বিক্ষোভ দেখালেন তাঁরা। একযোগে পাক সরকার এবং পাক আর্মির বিরুদ্ধে সরব হলেন তাঁরা। বিক্ষোভটি আয়োজন করেছিল United Kashmir People's National Party (UPNP), Swiss Kashmir Human Rights and Jammu Kashmir International People's Alliance (JKIPA)। পাক অধিকৃত কাশ্মীরের নেতা সর্দার সওকত আলি কাশ্মীরি বলেন, "পাক ফ্যাসিস্ট সরকারের দ্বারা আমরা আক্রান্ত, নির্যাতিত এবং সন্ত্রাসের শিকার। বারবার পাক সরকারের দ্বারা আমারা লাঞ্ছিত। আমাদের সংস্কৃতি নষ্ট হয়েছে। আমাদের মানুষ, বাসভূমি সবকিছু ধ্বংসের মুখে দাঁড়িয়ে।" তাঁর আরও অভিযোগ, পাকিস্তানের নৃশংস মানসিকতার উদাহরণ বহন করছে পক এবং গিলগিট-বালটিস্তানের মানুষরা।

আরও পড়ুন: আমেরিকা থেকে ভারতের হারিয়ে যাওয়া পুরাকীর্তি' নিয়ে ফিরছেন Modi

শনিবার রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সভাতেও আফগানিস্তানের মাটিকে ব্যবহার করে সন্ত্রাসবাদ প্রশ্নে পাকিস্তানকে বেঁধেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)। আফগানিস্তানের ভূমিকে যাতে সন্ত্রাস ছড়ানোর ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার করা না হয় সে ব্যাপারেও বিশ্বকে সতর্ক করেন মোদী। আন্তর্জাতিক মহলকে মোদীর বার্তা,''বিশ্বের সামনে বাড়ছে পশ্চাদমুখী মানসিকতা ও উগ্রতার বিপদ। এই পরিস্থিতিতে পুরো বিশ্বকে বৈজ্ঞানিক ভিত্তিতে মানসিকতার উন্নতি করতে হবে। সেজন্য অভিজ্ঞতা নির্ভর শিক্ষাকে উৎসাহিত করছে ভারত। হাজার হাজার ল্যাব খোলা হয়েছে। তৈরি হয়েছে স্টার্ট আপের পরিবেশ। স্বাধীনতার ৭৫ বছর উপলক্ষে ৭৫টি উপগ্রহ পাঠাতে চলেছে ভারত। যা তৈরি করছে স্কুল-কলেজের পড়ুয়ারা।''

আরও পড়ুন: Afghanistan: 'শিক্ষা' দিতে ৪ অপহরণকারীকে মেরে প্রকাশ্যে ঝুলিয়ে দিল তালিবান

আফগানিস্তানে তালিবানের দ্রুত উত্থানের নেপথ্যে পাকিস্তানের হাত রয়েছে বলে মনে করে কূটনৈতিক মহল। তালিবান সরকার গঠনের আগে কাবুলে গিয়েছিলেন পাক গুপ্তচর সংস্থার প্রধান। সেই প্রসঙ্গ উল্লেখ করে মোদী বলেন,''পশ্চাদমুখী মানসিকতার সঙ্গে সন্ত্রাসবাদকে রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে একটি দেশ। তাদের বুঝতে হবে সন্ত্রাসবাদ তাদের জন্যেও বিপজ্জনক।'