অনুমোদিত স্কুল গুলিকে স্পনসর্ড স্কুলে পরিণত করা নিয়ে তৈরি হল সংশয়

অনুমোদিত স্কুলকে স্পনসর্ড স্কুলে পরিণত করার সরকারি সিদ্ধান্ত কার্যকর করা নিয়ে তৈরি হল সংশয়। স্পনসর্ড স্কুলকে রাষ্ট্রীয় মাধ্যমিক শিক্ষা মিশন বা আর এম এস-র আওতায় আনতে নারাজ কেন্দ্র। কেন্দ্রের যুক্তি আর এম এসের জন্য প্রয়োজনীয় শর্ত পূরণ হচ্ছে না স্পনসর্ড স্কুলের ক্ষেত্রে। রাজ্যের তরফে  কেন্দ্রকে রাজি করানোর ফের চেষ্টা হচ্ছে।  

Updated By: Aug 29, 2013, 10:24 PM IST

অনুমোদিত স্কুলকে স্পনসর্ড স্কুলে পরিণত করার সরকারি সিদ্ধান্ত কার্যকর করা নিয়ে তৈরি হল সংশয়। স্পনসর্ড স্কুলকে রাষ্ট্রীয় মাধ্যমিক শিক্ষা মিশন বা আর এম এস-র আওতায় আনতে নারাজ কেন্দ্র। কেন্দ্রের যুক্তি আর এম এসের জন্য প্রয়োজনীয় শর্ত পূরণ হচ্ছে না স্পনসর্ড স্কুলের ক্ষেত্রে। রাজ্যের তরফে  কেন্দ্রকে রাজি করানোর ফের চেষ্টা হচ্ছে।  
এই মুহুর্তে রাজ্যের ১০৩টি স্কুল রাষ্ট্রীয় মাধ্যমিক শিক্ষা মিশন বা আর এম এসের আওতায়। আরও বেশি স্কুলকে এর আওতায় আনতে সম্প্রতি রাজ্য সরকার অনুদান প্রাপ্ত ইচ্ছুক স্কুলগুলির কাছ থেকে আবেদন গ্রহণ করে। সরকারের ধারণা ছিল  স্পনসর্ড স্কুলে পরিণত হলে স্কুলগুলি আর এম এসের সুবিধা পাবে। অর্থাত্ স্কুলের বাড়ি, লাইব্রেরি ইত্যাদির খরচ যেমন কেন্দ্র দেবে তেমনই শিক্ষকদেরও মাইনের একটা বড় অংশ কেন্দ্রের কাছ থেকে পাওয়া যাবে। এরফলে রাজ্যের কোষাগার থেকেও খরচ কিছুটা কমবে। গত এপ্রিল মাসে কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়নমন্ত্রককে রাজ্য সরকার প্রায় ৬ হাজার স্কুলের একটি তালিকা দেয়। সরকারের তরফে বলা হয়
 
স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকা বা শিক্ষাকর্মীরাও নির্দিষ্ট একটি পরীক্ষার মাধ্যমে নির্বাচিত হন।
 
স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকা ও শিক্ষাকর্মীদের বেতন সরকার দেয়।
 
স্কুলগুলি সরকার পরিচালনা করবে।
ফলে স্পনসর্ড স্কুলগুলি সরকারি স্কুলের সমতুল বলেই দাবি করা হয় রাজ্যের তরফে। সরকারের ভাবনা চিন্তা ছিল চলতি শিক্ষাবর্ষেই এই আর এম এসের সুবিধা পাওয়া যাবে। কিন্তু অগাষ্ট মাস গড়িয়ে গেলেও কেন্দ্রের তরফে সরকারিভাবে কিছুই জানানো হয়নি।  মানব সম্পদ উন্নয়ন ও শিক্ষা দফতর সূত্রে খবর রাজ্যের দাবি মানতে নারাজ কেন্দ্র।
কারণ কেন্দ্র মনে করছে স্কুল সার্ভিস কমিশনের মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগ হলেও স্কুল সার্ভিস কমিশন কোনও সরকারি সংস্থা নয়, সরকারি স্কুলের ক্ষেত্রে স্কুলের জমি সরকারের অধীন থাকে। কিন্তু এই সমস্ত অনুদান প্রাপ্ত স্কুলের ক্ষেত্রে স্কুলের জমির ওপর সরকারের  অধিকার নেই।
 
ফলে রাজ্যের দাবি মেনে কেন্দ্র পরিবর্তিত স্কুলগুলিকে আর এম এসের আওতায় আনতে নারাজ। কেন্দ্র সরকারিভাবে তাদের মনোভাব রাজ্যকে জানালে  রাজ্যের তরফে ফের আবেদনের চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। কিন্তু তাহলে যেসব স্কুল আবেদন করেছে পরিবর্তনের জন্য তাদের এই মুহুর্তে কি মর্যাদা হবে। শিক্ষা দফতর বলছে, কেন্দ্র রাজি না হলে স্কুলগুলি তাদের আগের অবস্থাতেই থাকবে অর্থাত অনুদানপ্রাপ্ত স্কুল হিসেবে কাজ করবে।