রাজ্যের উপকূলে বাণিজ্য আনতে চলছে মমতার সরকার, তৈরি শিল্প-নকশা

রাজ্যের উপকূলে তৈরি হবে পর্যটন ও শিল্পের নতুন সম্ভাবনা, জানালেন অমিত মিত্র। 

Updated By: Dec 7, 2019, 10:24 PM IST
রাজ্যের উপকূলে বাণিজ্য আনতে চলছে মমতার সরকার, তৈরি শিল্প-নকশা

সুতপা সেন: আসন্ন বিধানসভা ভোটের আগে রাজ্যে বড়সড় লগ্নি টানার চেষ্টায় মরিয়া মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। আর তাই উপকূলকে কেন্দ্র করে বিনিয়োগের লক্ষ্মীলাভের আশা করছে নবান্ন। নীল নকশা তৈরি হয়েছে উপকূলবর্তী এলাকায় পর্যটন ও শিল্পের প্রসারে। সেই লক্ষ্যেই ১১ ও ১২ ডিসেম্বর বাণিজ্য সম্মেলন হতে চলেছে দিঘায়। অর্থ ও শিল্পমন্ত্রী অমিত মিত্র জানিয়েছেন, ওই সম্মেলন থেকে একাধিক ঘোষণা হবে। রাজ্যের উপকূলে তৈরি হবে পর্যটন ও শিল্পের নতুন সম্ভাবনা।  

উপকূলের 'শিল্প-নকশা'

১.দিঘা,মন্দারমনি, শঙ্করপুর, তাজপুর সমুদ্রতটকে জুড়ে মুম্বইয়ের ধাঁচে তৈরি হচ্ছে সমুদ্র সেতু। পরিকাঠামো ক্ষেত্রে বিরাট সুবিধা পাবেন বিনিয়োগকারীরা।

২.দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার প্রবেশদ্বার পশ্চিমবঙ্গ। দক্ষিণ-পূর্ব ভারতের ৮টি রাজ্য- ভুটান,নেপাল, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া ও কুয়ালালামপুরে সঙ্গে উত্তম যোগাযোগ ব্যবস্থা। তার সুবিধা পাবেন বিনিয়োগকারীরা।

৩. জোর দেওয়া হবে শুকনো মাছ, ফল-ফুল রফতানি ও খাদ্য প্রক্রিয়াকরণে।

রাজ্যের শিল্প দফতর সূত্রে খবর, বিভিন্ন দেশ থেকে ইতিমধ্যেই এসেছে বিনিয়োগ প্রস্তাব।   

১. বীরভূমের দেওচা-পাচামির কয়লাখনিতে বিনিয়োগে আগ্রহী পোল্যান্ড ও চেকোস্লোভাকিয়া।               

২. হস্তশিল্পে লগ্নিতে আগ্ৰহ প্রকাশ করেছে ফ্রান্স।

৩. বিদ্যুতক্ষেত্রে বিনিয়োগে সম্মত অ্যারামকো।

৪. তাঁত ও খাদ্যপ্রক্রিয়াকরণেও এসেছে লগ্নির প্রস্তাব। 

১১ ও ১২ ডিসেম্বর দিঘায় রাজ্যের Business Conclave-এ ৩৫ টি দেশের প্রতিনিধিরা অংশ নেবেন। আমন্ত্রিত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, পোল্যান্ড, ফ্রান্স, চেকোশ্লোভাকিয়া, অস্ট্রেলিয়া, চিন, বাংলাদেশের মতো দেশের প্রতিনিধি ও শিল্পপতিরা।

আরও পড়ুন- গুলি করে মেরে ফেলা কাম্য নয়, এনকাউন্টারের নিন্দা না করে পারছি না: তথাগত