ভাঙা স্কুলঘরেই ত্রিপল টাঙিয়ে ক্লাস হল লীলাদেবী মেমোরিয়াল স্কুলে

স্কুল ভেঙে দিয়েছে প্রোমোটার। কিন্তু মনোবলে চিড় ধরেনি। ভাঙা স্কুলঘরেই ত্রিপল টাঙিয়ে ক্লাস হল বিধাননগরের দশদ্রোণ এলাকার লীলাদেবী মেমোরিয়াল স্কুলে। পাশে দাঁড়িয়েছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রীও। ভাঙা স্কুলবাড়ি তৈরি করে দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ভাঙা ছাদ। রড দেখা যাচ্ছে। সেই ভাঙা ঘরেই ক্লাসে পড়ছে ছোট ছোট পড়ুয়ারা। শুক্রবার রাতে দশের দ্রোণ এলাকার স্কুলবাড়ি ভেঙে গুঁড়িয়ে দেয় একদল দুষ্কৃতী। অভিযোগ, স্থানীয় প্রোমোটারের ইশারাতেই স্কুলে এই তাণ্ডব।  প্রোমোটারের ভ্রুকুটি অগ্রাহ্য করে একজোট স্কুল কর্তৃপক্ষ-অভিভাবকরা। স্কুলবাড়ি ভাঙচুর। তাতে কী। সোমবার সকাল থেকেই অভিভাবকদের হাত ধরে স্কুলে এসেছে ছোট্ট পড়ুয়ারা।  ক্লাস হয়েছে ভাঙা স্কুলঘরেই।

Updated By: Feb 20, 2017, 07:48 PM IST
 ভাঙা স্কুলঘরেই ত্রিপল টাঙিয়ে ক্লাস হল লীলাদেবী মেমোরিয়াল স্কুলে

ওয়েব ডেস্ক: স্কুল ভেঙে দিয়েছে প্রোমোটার। কিন্তু মনোবলে চিড় ধরেনি। ভাঙা স্কুলঘরেই ত্রিপল টাঙিয়ে ক্লাস হল বিধাননগরের দশদ্রোণ এলাকার লীলাদেবী মেমোরিয়াল স্কুলে। পাশে দাঁড়িয়েছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রীও। ভাঙা স্কুলবাড়ি তৈরি করে দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ভাঙা ছাদ। রড দেখা যাচ্ছে। সেই ভাঙা ঘরেই ক্লাসে পড়ছে ছোট ছোট পড়ুয়ারা। শুক্রবার রাতে দশের দ্রোণ এলাকার স্কুলবাড়ি ভেঙে গুঁড়িয়ে দেয় একদল দুষ্কৃতী। অভিযোগ, স্থানীয় প্রোমোটারের ইশারাতেই স্কুলে এই তাণ্ডব।  প্রোমোটারের ভ্রুকুটি অগ্রাহ্য করে একজোট স্কুল কর্তৃপক্ষ-অভিভাবকরা। স্কুলবাড়ি ভাঙচুর। তাতে কী। সোমবার সকাল থেকেই অভিভাবকদের হাত ধরে স্কুলে এসেছে ছোট্ট পড়ুয়ারা।  ক্লাস হয়েছে ভাঙা স্কুলঘরেই।

আরও পড়ুন ফেসবুক-টুইটারে সিপিআইএম-এর দলীয় কোন্দল

সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে বিধাননগর পুরনিগম। স্কুলবাড়ির ভাঙা ছাদ আপাতত ত্রিপল দিয়ে ঢেকে দেওয়া হয়েছে। সোমবার স্কুলবাড়ি পরিদর্শনে যান বিধাননগর পুরনিগমের এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার স্বপন মৈত্র।সবচেয়ে বড় আশ্বাস এসেছে খোদ মুখ্যমন্ত্রীর কাছ থেকে। আর সেই আশ্বাস বাড়তি সাহস জুগিয়েছে শিক্ষক-অভিভাবকদের। মেরামতি চলাকালীন ক্লাস চালু রাখতে মঙ্গলবার অভিভাবকদের বৈঠকে ডেকেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। শিক্ষক-শিক্ষিকা, অভিভাবকদের সাফ কথা, প্রোমোটিং চক্রের হুমকির সামনে নতিস্বীকার নয়। স্কুল চলবেই।

আরও পড়ুন  শিগগিরি ডিজিটাইজড হচ্ছে বিধানসভার গ্রন্থাগার