close

News WrapGet Handpicked Stories from our editors directly to your mailbox

চিন-পাকিস্তানের হামলার বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর অস্ত্র হয়ে উঠবে রাফাল-সু-৩০: ভাইস চিফ এয়ার মার্শাল

বর্তমানে বায়ুসেনার হাতে রয়েছে ২৭২টি সুখোই সু-৩০ ও ৬৯ মিগ-২৯ বিমান

Updated: Jul 12, 2019, 07:19 AM IST
চিন-পাকিস্তানের হামলার বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর অস্ত্র হয়ে উঠবে রাফাল-সু-৩০: ভাইস চিফ এয়ার মার্শাল

নিজস্ব প্রতিবেদন: এবছরই ভারতীয় বায়ুসেনার হাতে চলে আসছে রাফাল যুদ্ধ বিমান। শক্তিশালী ওই বিমান প্রতিবেশী অনেক রাষ্ট্রের সঙ্গে তফাত গড়ে দেবে বলেই মনে করা হচ্ছে। তবে উপ বায়ুসেনা প্রধান জানিয়েছেন চিন ও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর অস্ত্র হয়ে উঠবে রাফাল ও সু-৩০ এমকেআই জুটি।

আরও পড়ুন-'আসব, দেখব, জয় করব,' ভোটের পর বদলে গিয়েছে বিজেপি নেতাদের হাবভাব 

সংবাদসংস্থা এএনআইকে এয়ার ভাইস চিফ মার্শাল আরকেএস ভাদুড়িয়া বলেন, ‘সুখোই সু-৩০ ও রাফাল একসঙ্গে কাজ শুরু করলে তা আমাদের শত্রুর বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর অস্ত্র হয়ে উঠবে। পাকিস্তান কিংবা অন্য কেউ, এই জুটিকে ভয় পাবে।’

ভাইস চিফ এয়ার মার্শাল আরও বলেন, যে কোনও ধরনের হামলা চালালে ভয়ঙ্কর ক্ষতির সম্মুখীন হবে পাকিস্তান। কারণ রাফাল ও সুখোই সু-৩০ বিমানের সাহায্যে আরও নিখুঁত নিশানায় আঘাত করতে পারবে বায়ুসেনা।

আরও পড়ুন-তৃণমূলে ফিরলেও কাঁচরাপাড়ার কাউন্সিলরদের হৃদয়ে মোদী, দাবি কৈলাসের  

উল্লেখ্য, রাফালের পাশাপাশি রাশিয়ার কাছ থেকে ১৮টি সুখোই সু-৩০ ও ২১টি মিগ-২৯ যুদ্ধ বিমান কেনার পরিকল্পনা করেছে বায়ুসেনা। বর্তমানে বায়ুসেনার হাতে রয়েছে ২৭২টি সুখোই সু-৩০ ও ৬৯ মিগ-২৯ বিমান। পাকিস্তান ও চিনের সঙ্গে দুটি ফ্রন্টে লড়াই করতে গেলে প্রয়োজন অন্তত ৪২ স্কোয়ার্ডন বিমান।

বায়ুসেনার হাতে বর্তমানে রয়েছে ৩১ স্কোয়ার্ডন বিমান। কিছু পুরনো মিগ-২১ ও মিগ-২৯ বিমান বসিয়ে দেওয়ার পর যুদ্ধ বিমান সংখ্যা অনেকটাই কমেছে। সেই ঘাটতি পূরণ করতেই নতুন বিমান কেনার কথা ভাবা হচ্ছে।