‘ধোনি ভুল করেছিল’, মাহির অধিনায়কত্ব নিয়ে বিস্ফোরক গম্ভীর

একটি টেলিভিশন সাক্ষাত্কারে গৌতম গম্ভীর জানিয়েছেন, “২০১৫ সালের বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে ২০১২ সালেই দল নির্বাচন করা হচ্ছে, এটা ভেবেই আমি হতচকিত হয়েছিলাম। আমার বরাবরই মনে হয়েছে যদি কোনও ব্যাটসম্যান ধারাবাহিকভাবে রান করে, তাহলে বয়স কোনও ফ্যাক্টরই নয়।” 

Updated By: Dec 11, 2018, 03:19 PM IST
‘ধোনি ভুল করেছিল’, মাহির অধিনায়কত্ব নিয়ে বিস্ফোরক গম্ভীর

নিজস্ব প্রতিবেদন: ২০১২ সালের ঘটনা। তখন ভারতের ব্যাটিং লাইন আপে প্রথম তিন ছিলেন বীরেন্দ্র সেওয়াগ, গৌতম গম্ভীর এবং সচিন তেন্ডুলকর। ২০১৫ সালের বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে এই তিনকে একসঙ্গে না খেলানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। যার ফলে অস্ট্রিলিয়ায় সিবি (কমনওয়েলথ ব্যাঙ্ক) সিরিজের শুরুতে সেওয়াগ ও সচিনের সঙ্গে একসঙ্গে খেলা হয়নি গৌতির। যদিও পরে হোবার্টের ম্যাচে ধোনি এই ত্রয়ীকে একসঙ্গেই দলে রেখেছিলেন। ওই ম্যাচে ওপেন করেছিলেন বীরেন্দ্র সেওয়াগ ও সচিন তেন্ডুলকর। তিনে ব্যাট করেছিলেন গৌতম গম্ভীর। ভারত ম্যাচটা জিতেওছিল। মাহির এই সিদ্ধান্ত বদলেরই সমালোচনা করেছেন গৌতি।

আরও পড়ুন- বুমরাহ্ কেমন পেসার? মার্কশিট দিয়ে গেলেন ম্যাকগ্রা

একটি টেলিভিশন সাক্ষাত্কারে গৌতম গম্ভীর জানিয়েছেন, “২০১৫ সালের বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে ২০১২ সালেই দল নির্বাচন করা হচ্ছে, এটা ভেবেই আমি হতচকিত হয়েছিলাম। আমার বরাবরই মনে হয়েছে যদি কোনও ব্যাটসম্যান ধারাবাহিকভাবে রান করে, তাহলে বয়স কোনও ফ্যাক্টরই নয়।” একই সঙ্গে ধোনির মত বদল নিয়ে গৌতির আক্রমণ, “সিরিজের (সিবি সিরিজ) শুরুতে আমরা একসঙ্গে খেলিনি। কিন্তু যখন আমাদের সামনে মাস্ট উইন পরিস্থিতি তৈরি হল, তখন তিনজন একসঙ্গে খেললাম। দুটো সিদ্ধান্ত কখনই ঠিক হতে পারে না। হয় প্রথম সিদ্ধান্ত ভুল, আর নয় দ্বিতীয় সিদ্ধান্ত ভুল ছিল। অধিনায়ক হিসেবে যে সিদ্ধান্ত ও (মাহি)  নিয়েছিল তাতে আমরা তিনজনই বিস্মিত হয়েছিলাম।” আরও একধাপ এগিয়ে ধোনির উদ্দেশে গৌতিকে এও বলতে শোনা যায়, “যখন কোনও সিদ্ধান্ত তুমি নিচ্ছ, যে কোনও পরিস্থিতিতেই নিজের সিদ্ধান্তকে মান্যতা দেওয়ার চেষ্টা কর।”

আরও  পড়ুন- প্রথম বিবাহবার্ষিকী, এক বছরের লাভ স্টোরি ছবি-ভিডিওয় তুলে ধরলেন বিরাট-অনুষ্কা

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের সিবি সিরিজে ফাইনালের দোরগোড়ায়-ই পৌঁছতে পারেনি ভারত। প্রথম ৮টি ম্যাচের মধ্যে মাত্র তিনটি ম্যাচেই জিততে পেরেছিল ধোনিরা। যার ফলে ওই সিরিজে ফাইনালের আগেই ছিটকে জেতে হয়েছিল তাঁদের। ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল শ্রীলঙ্কা ও অস্ট্রেলিয়া। বেস্ট অব থ্রি-তে প্রথম ও দ্বিতীয় ম্যাচ জিতে সিরিজ নিজেদের কব্জায় নিয়েছিল অজিরা।