IPL 2021: জিতেই অভিযান শুরু কলকাতার, হায়দরাবাদ হারল ১০ রানে

রবিবাসরীয় মহারণে দুরন্ত জয় দিয়েই আইপিএল অভিযান শুরু করল তিলোত্তমার টিম কেকেআর। এদিন কলকাতার ১৮৭ রানের জবাবে হায়দরাবাদ গুটিয়ে গেল ১৭৭ রানে। কেকেআর জিতল ১০ রানে।

Updated By: Apr 11, 2021, 11:42 PM IST
IPL 2021: জিতেই অভিযান শুরু কলকাতার, হায়দরাবাদ হারল ১০ রানে

কলকাতা: ১৮৭/৬ 
হায়দরাবাদ: ১৭৭/৫
১০ রানে জয়ী কলকাতা

নিজস্ব প্রতিবেদন: আইপিএলের (IPL 2021) প্রথম সানডে ব্লকবাস্টারে মুখোমুখি হয়েছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স ও সানরাইজার্স হায়দরাবাদ (SRH vs KKR)। রবিবাসরীয় মহারণে দুরন্ত জয় দিয়েই আইপিএল অভিযান শুরু করল তিলোত্তমার টিম কেকেআর (KKR)। এদিন কলকাতার ১৮৭ রানের জবাবে হায়দরাবাদ গুটিয়ে গেল ১৭৭ রানে। কেকেআর জিতল ১০ রানে।

এদিন টস জিতে ডেভিড ওয়ার্নার (David Warner) ব্য়াটিংয়ের আমন্ত্রণ জানান অইন মর্গ্যান (Eoin Morgan) অ্যান্ড কোংকে। নীতিশ রানা (Nitish Rana) ও শুভমান গিলের (Shubman Gill) ওপেনিং জুটিতে ৭ ওভারে ৫৩ রান তোলে কলকাতা। কিন্তু ১৩ বলে ১৫ রান করেই গিল ক্লিন বোল্ড হয়ে যান গিল। স্টার স্পিনার রশিদ খানের বলে বোল্ড হয়ে যান তিনি। কিন্তু রানা বুঝে নেন যে,তাঁকে উইকেট দিয়ে আসলে হবে না। ২৭ বছরের দিল্লির বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান এবার রাহুল ত্রিপাঠীকে (Rahul Tripathi) সঙ্গে নিয়ে দলকে টানলেন। দু'জনে জুটি বেঁধে স্কোরবোর্ডে তুললেন ৯৩ রান। রাহুলও এদিন ঝকঝকে হাফ-সেঞ্চুরি করার পরেই আউট হয়ে গেলেন। ২৯ বলে ৫৩ রান করে টি নটরাজনের বলে উইকেটের পিছনে ঋদ্ধিমান সাহার হাতে ক্যাচ তুলে দেন তিনি। রাহুলের ব্যাট থেকে এল ৫টি চার ও ২টি ছয়। 

রাহুল ফেরার পর ক্রিজে আসেন ক্যারিবিয়ান পাওয়ার হিটার আন্দ্রে রাসেল (Andre Russell)। কিন্তু ড্রে রাস মাত্র ৫ রান করে ব্যর্থ হয়ে ফিরে যান। এরপরই শুরু হয়ে কেকেআরের পতন। ক্যাপ্টেন মর্গ্যান নামার পরেই ফিরে যান রানা। ৫৬ বলে অসাধারণ ৮০ রানের (৯টি চার ও ৪টি ছয়) ইনিংস খেলে থামতে হয় তাঁকে। মহম্মদ নবির বলে বিজয় শঙ্করের হাতে জমা পড়েন তিনি। রানার সঙ্গেই প্রায় তাঁর পথ ধরেন মর্গ্যান। বিশ্বকাপ জয়ী কেকেআর ক্যাপ্টেনের ব্যাট থেকে এল মাত্র ২ রান। শেষ দুই ওভার দীনেশ কার্তিক (Dinesh Karthik) ও শাকিব আল হাসানের (Shakib Al Hasan) হাতে ছিল। প্রাক্তন অধিনায়ক দীনেশের ক্যামিও ইনিংসে (৯ বলে ২২) ভর করে কেকেআর শেষ পর্যন্ত ৫ উইকেট হারিয়ে তোলে ১৮৭। 

ব্যাট করতে নেমে হায়দরাবাদকে শুরুতেই জোড়া ধাক্কা দেয় কলকাতা। দলের দুই ওপেনার ঋদ্ধিমান সাহা (Wriddhiman Saha) ওয়ার্নার ১০ রানের মধ্যে ফিরে যান। ঋদ্ধিকে (৭) বোল্ড করে দিলেন শাকিব। হায়দরাবাদের ক্যাপ্টেন তিন রান করে প্রসিদ্ধ কৃষ্ণার (Prasidh Krishna) বলে ক্যাচ তুলে দেন কার্তিকের হাতে। শুরু থেকেই ওয়ার্নারদের ওপর আধিপত্য ফলাতে শুরু করেন মর্গ্যানরা। দুই উইকেট হারানো দলকে টেনে তুলতে ক্রিজে আসেন মণীশ পাণ্ডে (Manish Pandey)। তাঁকে সঙ্গ দেন জনি বেয়ারস্টো (Jonny Bairstow)। ৬৭ বলে ৯২ রান যোগ করেন জুটিতে। বেয়ারস্টো ৪০ বলে ঝকঝকে ৫০ রানের ইনিংস খেলে আউট হয়ে যান। ৫টি চার ও ৩টি ছয়ে সাজানো তাঁর ইনিংস থামিয়ে দেন প্যাট কামিন্স (Pat Cummins)। রানার হাতে ক্যাচ তুলে দেন ব্রিটিশ উইকেটকিপার-ব্যাটসম্য়ান। 

বেয়ারস্টো যখন ফেরেন তখন হায়দরাবাদের স্কোর ছিল ১৩ ওভারে ১০২ রান। সাত ওভারে জেতার জন্য প্রয়োজন ছিল ৮৬। মণীশের হাত শক্ত করতে নেমে নবি ১৪ রান করে ফিরে যান। কৃষ্ণার শিকার হন তিনি। মণীশ একটা প্রান্ত ধরে রাখলেও বেয়ারস্টোর পর কেউই আর তাঁকে সঙ্গ দিতে পারল না। বিজয় শঙ্কর ৬ নম্বরে নেমে ১১ করে আউট হয়ে যান। তিনি ফেরেন ম্যাচ শেষের দুই ওভার আগে। তখন হায়দরাবাদের জয়ের টার্গেট দাঁড়ায় ১২ বলে ৩৮। মর্গ্যান বাহিনী জয়ের গন্ধ পেতে শুরু করে দেয়। মণীশ কুম্ভ আগলে রাখেন। আসেন আব্দুল সামাদ। কিন্তু তাঁর থেকে খুব একটা প্রত্যাশা ছিল না কারোরই। তবুও কাশ্মীরি ক্রিকেটার মরিয়া চেষ্টা করেন দলকে জেতানোর। ৮ বলে ১৯ করেন তিনি। অন্যদিকে মণীশ অপরাজিত থাকেন ৪৪ বলে ৬১ রানের ইনিংস খেলে। তাঁর দুরন্ত লড়াই আর কাজে এল না। দল হেরে যায় ১০ রানে। 

শেষ কয়েক বছর ধরেই কিন্তু কলকাতা নাইট রাইডার্স আইপিএলে দাগ কাটতে পারছে না। ৬ বছর ট্রফির মুখ দেখেনি কেকেআর। শেষ দু'বছরই প্লে-অফে যেতে পারেনি শাহরুখ খানের (Sharukh Khan) ফ্র্যাঞ্চাইজি। তবে এই মরসুমে হিসেব বদলাতে মরিয়া অইন মর্গ্যান অ্যান্ড কোং। মিশন আইপিএলের শুরুটা দারুণ মেজাজেই করল কেকেআর।