close

News WrapGet Handpicked Stories from our editors directly to your mailbox

“বিজেপিকে ঠেকাতে বালুর পাশেও দাঁড়াতে পারি”, তৃণমূলকে বার্তা এই সিপিএম নেতার

লোকসভা নির্বাচনের পর তৃণমূলের পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়েছে, এ কথা মেনে নিচ্ছেন দলের একাংশই। দলের ভাবমূর্তি ফেরাতে ভোট কুশলী প্রশান্ত কিশোরের দ্বারস্থ হয়েছেন স্বয়ং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

Moumita Chakrabortty | Updated: Jul 14, 2019, 02:50 PM IST
“বিজেপিকে ঠেকাতে বালুর পাশেও দাঁড়াতে পারি”, তৃণমূলকে বার্তা এই সিপিএম নেতার
ফাইল চিত্র

মৌমিতা চক্রবর্তী: বাংলায় বিজেপিকে রুখতে তৃণমূলের হাত ধরাই যেতে পারে। এই বার্তা আরও স্পষ্ট করলেন সিপিএম নেতা তন্ময় ভট্টাচার্য। এর আগে গৌতম দেব একই বার্তা দিয়ে জল্পনা উস্কে দিয়েছিলেন। গৌতম দেব বলেছিলেন, ইস্যু ভিত্তিক লড়াইয়ে তৃণমূলের পাশে থাকতে তাদের আপত্তি নেই। রাজনীতি এবং অস্পৃশ্যতা পাশাপাশি বসতে পারে না বলে মনে করেন এই প্রবীণ সিপিএম নেতা।

রবিবার, আরও এক ধাপ এগিয়ে তন্ময় ভট্টাচার্য জানান, মধ্যমগ্রামে ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান দিয়ে যদি গণপিটুনি হয়, আর ঘটনাস্থলে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক থাকেন, তিনিও তাঁর পাশে গিয়ে দাঁড়াবেন। তন্ময়বাবু বলেন, বিজেপিকে রুখতে ইস্যু ভিত্তিক লড়াইয়ে তৃণমূল-সিপিএম পাশাপাশি দাঁড়াতেই পারে। কোনও অস্পৃশ্যতার জায়গা নেই। সিপিএম-র সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরিও তৃণমূলের পাশে থেকে লড়ার বার্তা দিয়েছেন। তবে একটাই শর্তে। তাঁর অভিযোগ, অনেক সিপিএম কর্মীকে মিথ্যে মামলায় জড়ানো হয়েছে। সে সব মামলা প্রত্যাহার করে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়া উচিত মুখ্যমন্ত্রীর।

আরও পড়ুন- সাংসদ আজ়ম খানকে ‘জমি মাফিয়া’ বলে ঘোষণা করতে পারে যোগী সরকার

লোকসভা নির্বাচনের পর তৃণমূলের পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়েছে, এ কথা মেনে নিচ্ছেন দলের একাংশই। দলের ভাবমূর্তি ফেরাতে ভোট কুশলী প্রশান্ত কিশোরের দ্বারস্থ হয়েছেন স্বয়ং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি, তৃণমূল নেত্রী এ-ও বার্তা দিয়ে রেখেছেন সাম্প্রদায়িক শক্তি মোকাবিলায় কংগ্রেস এবং সিপিএম-র সঙ্গে লড়তে তাদেরও কোনও আপত্তি নেই। অর্থাত্ গ্রিন সিগন্যাল সব জায়গা থেকেই রয়েছে। কিন্তু প্রশ্ন, অনুঘটকের কাজটা কে করবে? বিজেপিকে ঠেকাতে তন্ময় ভট্টাচার্যের এ দিনের মন্তব্যে এটা স্পষ্ট, তৃণমূলের হাত ধরতে এক পায়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে ‘বিলুপ্ত’ সিপিএম। শুধুমাত্র ইস্যুর অপেক্ষা!