করোনার জের, নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত সিলেবাস ৩০ শতাংশ কমাতে চলেছে CBSE

সিবিএসই-র তরফে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, দেশে করোনা সংক্রমণের ফলে যে পরিস্থিতির উদ্ভব হয়েছে তাতে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির সিলেবাস কম করা সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে

করোনার জের, নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত সিলেবাস ৩০ শতাংশ কমাতে চলেছে CBSE
ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদন: করোনা সংক্রমণ দুনিয়ার সবকিছুই ওলটপালট করে দিয়েছে।  লকডাউনে এখনও পর্যন্ত বন্ধ রয়েছে গোটা দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বিশেষকরে স্কুল শিক্ষায় ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে লকডাউন। এরকম এক পরিস্থিতিতে  নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত সিলেবাস ৩০ শতাংশ কম করার সিদ্ধান্ত নিল সিবিএসই। টুইট করে জানিয়েছে, কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ণ মন্ত্রী রমেশ পোখরিওয়াল।

আরও পড়ুন-UGC নির্দেশিকার বিরুদ্ধে সরব শিক্ষার্থীরা, #StudentsLivesMatter ট্রেন্ডিং সোশ্য়াল মিডিয়ায়

কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী টুইট করেছেন, গোটা দেশ ও দুনিয়ায় করোনা যে প্রভাব ফেলেছে তাতে সিবিএসই-কে সিলেবাস নিয়ে ভাবনাচিন্তা করতে বলা হয়েছিল। এক্ষেত্রে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত সিলেবাস কম করার কথা বলা হয়েছিল। গুরুত্বপূর্ণ অংশ রেখে সিলেবাসের ৩০ শতাংশ কম করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বোর্ড।
শিক্ষা মন্ত্রী আরও জানিয়েছেন, এক সপ্তাহ আগে দেশের শিক্ষাবিদদের কাছ থেকে এনিয়ে পরামর্শ চেয়েছিলাম। সেই আহ্বানে সাড়া দিয়ে ১৫০০ পরামর্শও জমা পড়েছে। 

আরও পড়ুন-বিকাশের নামে ভুয়ো ফেসবুক অ্যাকাউন্টে কুরুচিকর পোস্ট, কাঠগড়ায় বিজেপি

এদিকে, সিবিএসই-র তরফে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, দেশে করোনা সংক্রমণের ফলে যে পরিস্থিতির উদ্ভব হয়েছে তাতে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির সিলেবাস কম করা সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যে অংশ কম করা হয়েছে তা স্কুলের ইন্টারন্যাল অ্য়াসেসমেন্ট ও বোর্ডের পরীক্ষায় থাকবে না।

উল্লেখ্য, গত ৬ জুন সিবিএসই-র সিলেবাস ৩০ শতাংশ কম করার দাবি তোলেন দিল্লির উপ মুখ্যমন্ত্রী মণীশ সিসোদিয়া। তাঁর যুক্তি, করোনা সংক্রমণের ফলে পড়ুয়াদের প্রচুর ক্ষতি হয়েছে। এই ক্ষতিপূরণ করা অসম্ভব। তাই ,সিলেবাসের অন্তত ৩০ শতাংশ কম করা হোক। পোখলিয়ালকে লেখা এক চিঠিতে সিসোদিয়া উল্লেখ করেন, সাবধানতা নিয়ে কিছু স্কুল অন্তত খোলা হোক।