গুলি অসম-মিজোরাম সীমান্তে; টুইটে শাহ-হস্তক্ষেপের আর্জি দুই মুখ্যমন্ত্রীরই

অসম সরকারের দাবি, মিজো পুলিসের গুলিতে মৃত্যু হয়েছে ৬ অসম পুলিসের।

Updated By: Jul 26, 2021, 09:06 PM IST
গুলি অসম-মিজোরাম সীমান্তে; টুইটে শাহ-হস্তক্ষেপের আর্জি দুই মুখ্যমন্ত্রীরই

নিজস্ব প্রতিবেদন: জুন মাসের পর আবার এই জুলাইয়ে। ফের অসম-মিজোরামের সীমান্ত কেন্দ্র করে দুপক্ষের সঙ্ঘাত। দিন দুয়েক আগেই উত্তর-পূর্বের সব মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন অমিত শাহ। তার পরেই এই ঘটনা। 

অসম সরকারের দাবি, অসম-মিজোরাম সীমান্তে সঙ্ঘাতের জেরে মৃত্যু ঘটেছে ৬ অসম পুলিস জওয়ানের। অসম পুলিসের দাবি, মিজোরাম পুলিসই (Mizoram Police) অসম পুলিসকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়তে শুরু করে। 

আরও পড়ুন:  ত্রিপুয়ার পুলিসি বাধার মুখে I-PAC, 'ভয় পেয়েছে BJP', তোপ Abhishek-এর

দু'দিন আগেই শিলংয়ে উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলির মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। আর তার পরই সীমানা সংক্রান্ত বিবাদে জড়াল অসম ও মিজোরাম। আজ, সোমবার লায়লাপুর (Lailapur) সীমানার কাছে মিজোরামের দিক থেকে অসমের সরকারি আধিকারিদের উপর ইট, পাথর ছোড়া হয়েছে বলে অভিযোগ অসম সরকারের। ঘটনাস্থলে গুলিও চলে বলে দাবি। 

ঘটনার জেরে ওই অসম-মিজোরাম সীমানায় পুলিস বাহিনী মোতায়েন করে অসম সরকার। অসম পুলিসের (Assam Police) সঙ্গে মিজোরামবাসীরও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ার ভিডিয়ো ছড়িয়ে পড়ে। দুই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীই সঙ্ঘাতের ভিডিয়ো টুইটারে পোস্ট করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ প্রার্থনা করেন।

অসম পুলিস এবং মিজোরামের ওই এলাকার স্থানীয়দের মধ্যে সঙ্ঘাতের ভিডিয়ো টুইটারে পোস্ট করেছিলেন মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী জোরামথাঙ্গা (Zoramthanga)। তিনি লেখেন, 'অমিত শাহজি, দয়া করে বিষয়টি খতিয়ে দেখুন। এটা এখনই বন্ধ হওয়া দরকার।' প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মাকেও ওই টুইটে ট্যাগ করেন তিনি। তার পরই অসম পুলিসের তরফে বলা হয়, জমি বেদখল আটকাতে লায়লাপুরে সীমানা পরিদর্শনে গিয়েছিলেন অসমের সরকারি আধিকারিকেরা। সেই সময়ে তাঁদের উপর ইট-পাথর ছোড়ে মিজো-দুষ্কৃতীরা।

হিমন্তও (Assam CM Himanta Biswa Sarma) টুইটারে জোরামথাঙ্গা, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে লেখেন-- মিজোরাম পুলিশ সুপার আমাদের পোস্ট থেকে সরে যেতে বলছেন। না সরলে অশান্তি থামবে না বলা হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে কী ভাবে সরকার চালানো যায়!

(Zee 24 Ghanta App : দেশ, দুনিয়া, রাজ্য, কলকাতা, বিনোদন, খেলা, লাইফস্টাইল স্বাস্থ্য, প্রযুক্তির লেটেস্ট খবর পড়তে ডাউনলোড করুন Zee 24 Ghanta App)

আরও পড়ুন: নজরে জৈন হাওয়ালাকাণ্ড! দিল্লিতে পা দিয়েই সাংবাদিক বিনীত নারাইনের সঙ্গে বৈঠক মমতার