পেটের ভিতর প্রতিটি অঙ্গে পচন, মৃত্যুর মুখ থেকে বিরল রোগে আক্রান্ত রোগীকে ফেরালেন চিকিৎসক

অতি বিরল এবং মারাত্মক জটিল রোগের চিকিত্‍সায় অবিশ্বাস্য সাফল্য পেল শহর কলকাতা।

Reported By: তন্ময় প্রামাণিক | Edited By: Priyanka Dutta | Updated By: Jul 4, 2020, 11:39 PM IST
পেটের ভিতর প্রতিটি অঙ্গে পচন, মৃত্যুর মুখ থেকে বিরল রোগে আক্রান্ত রোগীকে ফেরালেন চিকিৎসক
নিজস্ব চিত্র

তন্ময় প্রামাণিক: পেটের ভিতর প্রতিটি অঙ্গ যে আবরণে ঢাকা থাকে, তার সবই পচে যাচ্ছিল। নিশ্চিত মৃত্যুর মুখ থেকে রোগীকে জীবনের আলোয় ফেরালেন এই শহরের এক ডাক্তার। অতি বিরল এবং মারাত্মক জটিল রোগের চিকিত্‍সায় অবিশ্বাস্য সাফল্য পেল শহর কলকাতা।

আরও পড়ুন: সমস্ত রেকর্ড ভেঙে একদিনে রাজ্যে করোনা আক্রান্ত ৭৪৩, মৃত আরও ১৯

রোগের নাম 'রেট্রোপেরিটোনিয়াল নেক্রটাইজিং ফাসিআইটিস'। লাখে বা কয়েক লাখে নয়। কোটিতে কদাচিত্‍ এই রোগে একজন আক্রান্তের সন্ধান মেলে। পূর্ব বর্ধমানের কাটোয়ার বাসিন্দা অরিন্দম ব্যানার্জি হলেন সেই বিরল প্রতিনিধি। অসহ্য যন্ত্রণা নিয়ে ঢাকুরিয়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। 

আরও পড়ুন: মানবদেহে শুরু হচ্ছে কোভ্যাক্সিনের পরীক্ষা, ট্রায়ালের অংশ হতে চলেছে কলকাতাও

প্রথম সাফল্য যদি হয় রোগ নির্ণয়, দ্বিতীয়টা অবশ্যই কঠিনের চেয়েও কঠিন অস্ত্রোপচার। কৃতিত্বের মুকুটে একাধিক পালক। এখনও পর্যন্ত বিশ্বের ১৪ জন রোগীর মধ্যে যে ৩ জন বেঁচেছেন অস্ত্রোপচারের সময় তাঁদের বয়স ছিল কুড়ির ঘরে। পনেরোর প্রতিনিধি অরিন্দম বন্দ্যাপাধ্যায়ের বয়স ৫০-এর ঘরে। 

আরও পড়ুন: কামারহাটিতে গৃহবধূর রহস্যমৃত্যু, শ্বশুড়বাড়ি থেকে উদ্ধার দেহ, আটক মৃতার স্বামী

আগের ৩টি কেসে অঙ্গের পচা আবরণ বাদ দিতে গিয়ে প্রত্যেকের একাধিক বার সার্জারি হয়েছে। এখানে একবার অস্ত্রোপচারেই পুরো প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। আগের ৩টি কেসে প্রায় দেড় মাস করে হাসপাতালে থাকতে হয়েছে রোগীদের। তবে এবার কলকাতায় ১৪ দিনে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন রোগী। পুরো কেস লিখিত ভাবে আন্তর্জাতিক জার্নালে পাঠাচ্ছেন ডক্টর শুদ্ধসত্ত্ব সেন।